নীলফামারীতে চালককে হত্যার পর ‘ইজিবাইক নিয়ে গেছে’ দুর্বৃত্তরা।

সোমবার দুপুরে জেলা সদরের চাপড়া সরমজানী ইউনিয়নের ইটাপীর সেতু সংলগ্ন এক গর্ত থেকে ওই চালকের পা বাঁধা অবস্থায় রক্তমাখা মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহত আব্দুল হালিম (৫৫) একই ইউনিয়নের লতিফ চাপড়া কোরানীপাড়া গ্রামের আফসার আলীর ছেলে।

নীলফামারী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাহমুদ-উন-নবী বলেন, নিহতের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। হত্যা রহস্য উদঘাটনসহ ইজিবাইকটি উদ্ধারে কাজ চলছে।

চাপড়াসরমজানী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান জানান, ইজিবাইক চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন আব্দুল হালিম। তার স্ত্রী ও চার মেয়ে রয়েছে। প্রতিদিনের মতো রোববার সকালেও ইজিবাইক নিয়ে বের হলেও রাতে বাড়িতে না ফেরায় খুঁজতে শুরু করেন তার স্বজনরা।

সোমবার সকাল ১০টার দিকে ইউনিয়নের ইটাপীড় সেতু সংলগ্ন সড়কের পাশের গর্তে তার পা বাঁধা রক্তমাখা মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয় স্থানীয়রা।

দুপুরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে নিয়ে গেছে বলেন তিনি।

মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে এবং নিহতের স্বজনরা মামলার করার প্রস্তুতি নিচ্ছে জানিয়েছে পুলিশ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য