ডায়াবেটিস সমস্যার জন্য অনেক পরিাবারেই চিনির ব্যবহার কমে গেছে। চিকিৎসকরাও আজকাল চিনি থেকে দূরত্ব বজায় রাখতে বলেন। তবে খাওয়া হয় না বলে কী দূরত্বে থাকতে হবে, এটা একদমই ঠিক নয়। ত্বকের যত্নে কত কিছুই না ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এখন থেকে না নয় সেই তালিকায় চিনি রাখা হোক। প্রাকৃতিক এই স্ক্রাবারকে ত্বকের যত্নে সেরা উপাদান হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

রূপ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কেবল মাত্র লেবুর রসের সঙ্গে ভালো করে চিনি মিশিয়ে ব্যবহারের ফলে হাতের কনুইয়ের কালো দাগ দূর হয়। এভাবে নিয়মিত চিনি ও লেবুর মিশ্রণ ব্যবহারে ত্বকের উজ্জ্বল্য বজায় থাকে এবং ঠোঁটে ব্যবহারের ফলে ঠোঁট নরম থাকে। এমনকি স্ট্রেচ মার্ক সরাতেও বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

ত্বকের মৃত কোষ তুলতে গিয়ে নাজেহাল হয়েছেন। তাহলে অলিভ অয়েল ও কয়েক ফোটা নারকেল তেলের সঙ্গে এক চামচ চিনি মিশিয়ে মুখে ভালো করে স্ক্রাব করুন। যতক্ষণ না পর্যন্ত চিনি না গলে সে পর্যন্ত মুখে স্ক্রাব করতে থাকুন। কিছুক্ষণ পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ভালো করে মুখ ধুয়ে নিন। নিয়মিত ব্যবহারের ফলে শরীরের মৃত কোষ উঠে গিয়ে ত্বক হবে উজ্জ্বল ও ঝলমলে।

যাদের ত্বক চকলেট রঙের তারা উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির জন্য চিনি ব্যবহার করতে পারেন। এজন্য কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েল ও এক চামচ লেবুর রসের সঙ্গে পরিমাণমতো চিনি মিশিয়ে ত্বকে লাগান। প্রায় ১৫ কি ২০ মিনিট পর ধোয়ার সময় ত্বক স্ক্রাব করুন।

শীত কী গ্রীষ্ম, অনেকের তো বারোমাসই ঠোঁট ফাটে। এ সমস্যায় ভুগলে আজই চিনি ব্যবহার শুরু করুন। এ জন্য প্রথমে বিটের রস ও চিনি ভালো করে মিশিয়ে ঠোঁটে লাগান। এতে ঠোঁট নমনীয় থাকার পাশাপাশি গোলাপি রঙেরও হবে।

অনেকেরই হঠাৎ করে ওজন বাড়ে বা কমে। এই সময় ত্বকে স্ট্রেচ মার্ক পড়ে। এছাড়াও মহিলাদের প্রেগন্যান্সির পরও দাগ হয়। এই দাগকে চিরতরে তুলে ফেলার জন্য কফি, চিনি, আমন্ড তেল ও মধু মিশিয়ে নিয়মিত মালিশ করুন। ক’দিন পর নিজেই ফলাফল বুঝতে পারবেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য