ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা নির্বাচনের আগে নানা ইস্যুতে বিবাদে জড়াচ্ছেন তৃণমূল কংগ্রেস ও বিজেপি নেতারা। এর মধ্যেই শুক্রবার এক আলোচনায় অংশ নিয়ে রাম-দুর্গা নিয়ে মন্তব্য করে নতুন বিতর্কের জন্ম দেন বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

দিলীপ বলেন, ‘খুব দুর্ভাগ্যের কথা। (তৃণমূল) এমন একটা দল যার কোনও মাথামুণ্ডু নেই। কোনও আদর্শ নেই। ধর্মের জায়গায় রাজনীতির কথা বলে। রাজনীতির জায়গায় কথা বলে ধর্ম-জাতপাত নিয়ে। আমরা এমনটা করি না। আমরা খোলাখুলি রাজনীতি করি। ভগবান রাম একজন রাজা ছিলেন। কেউ তাকে অবতার বলে বিশ্বাস করেন। রামের ১৪ জন পূর্বপুরুষের নামও পেয়ে যাবেন আপনি। দুর্গার পাওয়া যাবে কি?’

দিলীপের এমন মন্তব্যের পর তার নিন্দায় সরব হয়েছে তৃণমূল। দলটি বলছে, দেবী দুর্গার অবমাননা করেছেন বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি। এই অপমান পশ্চিমবঙ্গের নারীরা মেনে নেবে না।

তৃণমূলের টুইটার হ্যান্ডেলে দিলীপ ঘোষকে ট্যাগ করে লেখা হয়েছে, ‘অভাবনীয়! বাংলার পবিত্র মাটিতে বসে দিলীপ বাবু আমাদের দেবী দুর্গাকে অপমান করেছেন! দেবী দুর্গা আমাদের মা, আমাদের শক্তি, আমাদের অনুপ্রেরণা! যারা নিজেদের হিন্দু ধর্মের রক্ষক ও সমর্থক বলে দাবি করেন, তারাই এখন দেবী দুর্গার অবমাননা করছেন।’

তৃণমূল সমর্থিত ‘বাংলার গর্ব মমতা’ টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে লেখা হয়েছে, ‘বাংলার নারীরা মা দুর্গার অপমান কোনও দিনই মেনে নেবে না। বাংলার সংস্কৃতিতে দেবী দুর্গা একদিকে সকলের মা ও রক্ষক। অপরদিকে তিনি সকলের মেয়েও যে বছরে একবার প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে আসে এবং যাওয়ার সময় সবাইকে কাঁদিয়ে দিয়ে যায়।’

শুক্রবারের ওই আলোচনা অনুষ্ঠানেও দিলীপকে আক্রমণ করতে ছাড়েনি তৃণমূল। সেখানে তৃণমূলের প্রতিনিধি ছিলেন বারাসতের এমপি কাকলি ঘোষ দস্তিদার। রামকে নিয়ে বিজেপি দেশের ধর্মীয় ইতিহাস বদল করার প্রচেষ্টা শুরু করেছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। পাশাপাশি, দুর্গা শুধু বাংলার ভাবনা নয়, হিন্দুত্বেরও ভাবনা বলে উল্লেখ করেন তিনি।

কাকলি ঘোষ বলেন, ‘ভারত হলো বহু ভাবনার সঙ্গম। বহু রাজ্য রামের আরাধনা করে, ঠিক যেমন আমরা (বাঙালিরা) মা দুর্গাকে রক্ষক হিসেবে দেখি। বাংলায় আমরা মা দুর্গার পুজো করি।’

বিজেপি-কে ‘ভারতীয় জুমলা পার্টি’ বলেও কটাক্ষ করেন তিনি। বলেন, ‘দেশের ধর্মীয় ইতিহাসকে বদল করার চেষ্টা চলছে। যা অত্যন্ত লজ্জাজনক।’

এর আগেও বিভিন্ন মন্তব্য করে বহু বার বিতর্কে জড়িয়েছেন দিলীপ। ‘গরুর দুধে সোনা’ থাকে বলেও অনেকের কটাক্ষের পাত্র হয়েছিলেন তিনি। সেই সময় তার মন্তব্য ছিল, ‘গরুর দুধে সোনার অংশ থাকে। তাই দুধের রঙ হলুদ হয়।’ এ নিয়ে দিলীপের ব্যাখ্যা, ‘দেশি গরুর কুঁজের মধ্যে স্বর্ণনাড়ি থাকে। সূর্যের আলো পড়লে, সেখান থেকে সোনা তৈরি হয়।’ সূত্র: আনন্দবাজার, হিন্দুস্তান টাইমস।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য