অ্যাস্ট্রাজেনেকার সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে তৈরি কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন শিশুদের শরীরে কতটা সুরক্ষা তৈরি করতে পারে তা জানতে প্রথমবারের মতো গবেষণা শুরু করেছে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। এর অংশ হিসেবে ৬ থেকে ১৭ বয়সী শিশুদের শরীরে এ ভ্যাকসিনের ট্রায়াল চালাবে তারা। শনিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এ ঘোষণা দেয় বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

ওষুধ কোম্পানি অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌথ উদ্যোগে তৈরি ভ্যাকসিন ‘বিশ্ববাসীর টিকা’ হিসেবে প্রশংসা কুড়িয়েছে। কারণ, এটি অন্য ভ্যাকসিনের তুলনায় সস্তা এবং বিতরণ ব্যবস্থাও অপেক্ষাকৃত সহজ। তবে ভ্যাকসিনটি নিয়ে এখন পর্যন্ত প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যেই পরীক্ষা চালানো হয়েছে। শিশুদের শরীরে এতোদিন এর কার্যকারিতা পরীক্ষা করা হয়নি।

রয়টার্সকে পাঠানো এক বিবৃতিতে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় জানিয়েছে, ৬ থেকে ১৭ বছর বয়সী ৩০০ স্বেচ্ছাসেবীর দেহে এবার ভ্যাকসিনের ট্রায়াল চালাবে তারা। এ মাসেই পরীক্ষা শুরুর পরিকল্পনা আছে তাদের। এটি হবে মাঝামাঝি পর্যায়ের ট্রায়াল।

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা এ বছর ভ্যাকসিনের ৩শ কোটি ডোজ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। এপ্রিল নাগাদ মাসে ২০০ মিলিয়ন ডোজ উৎপাদন করতে পারার আশা করছে তারা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য