তিব্বতে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বাঁধ নির্মাণ করবে চীন

আন্তর্জাতিক

তিব্বতে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বাঁধ নির্মাণ করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে চীন। গত বছর নভেম্বরে দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমে এই পরিকল্পনা তুলে ধরা হয়। এতে বলা হয়েছে, স্বায়ত্ত্বশাসিত তিব্বত অঞ্চলের ইয়ারলুং সাংপো নদীতে বাঁধ নির্মাণ করে ৬০ গিগাওয়াটের জলবিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপন করা হবে। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা এ খবর জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, ২০৬০ সালের মধ্যে চীন কার্বন নিরপেক্ষতা অর্জনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করার ফলে তিব্বতের জলবিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়নে তোড়জোড় শুরু হয়েছে। যদিও এই বাঁধ নিয়ে তিব্বতের মানবাধিকার গোষ্ঠী ও পরিবেশবাদীরা বিরোধিতা করছেন।

তিব্বতীয় পলিসি ইনস্টিটিউটের পরিবেশ ও উন্নয়ন প্রধান টেম্পা গিয়াল্টসেন জাম্লাহা বলেন, তিব্বতীয় মালভূমি থেকে জন্ম নেওয়া নদীর তীরের এই প্রকৃতি অনন্য এবং তা শতাব্দী প্রাচীন। কিন্তু ১৯৫০ সালে তিব্বতকে চীনে একীভূত করার পর নিজেদের ভূখণ্ড নিয়ে কথা বলার অধিকার হারিয়েছে তিব্বতীয়রা।

তিনি বলেন, চীনা দখলের আগে আমাদের কোনও বাঁধ ছিল না। আমরা বাঁধ তৈরি করতে পারিনি, বিষয়টি এমন না। আমরা তৈরি করিনি নদীর প্রকৃতির প্রতি শ্রদ্ধার কারণে।

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু নদী ইয়ারলুং সাঙ্গপো। এটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ১৬ হাজার ৪০৪ ফুট উঁচুতে পৌঁছেছে। নদীটির গভীরতা যুক্তরাষ্ট্রের গ্র্যান্ড ক্যানিয়নের চেয়ে দ্বিগুণ।

নদীর তীব্র স্রোতের কারণে জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের জন্য আদর্শ হলেও বিশেষজ্ঞরা এই বাঁধের রাজনৈতিক ও পরিবেশগত প্রতিক্রিয়া বিবেচনায় নিয়ে সতর্ক করছেন।

পাওয়ার কনস্ট্রাকশন কর্প অব চায়নার চেয়ারম্যান জ্যান জিয়ং জানান, চীনের সবুজ ভবিষ্যতের জন্য এই বড় বাঁধ নির্মাণের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

চীনের সবচেয়ে বড় জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের তুলনায় এই বাঁধ থেকে তিনগুণ বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য