ইন্দোনেশিয়ায় বাঘের হাতে চিড়িয়াখানাকর্মীর মৃত্যু

আন্তর্জাতিক

ইন্দোনেশিয়ায় ঘের থেকে বের হয়ে যাওয়া দুটি বিপন্ন প্রজাতির সুমাত্রান বাঘের হামলায় একজন চিড়িয়াখানা কর্মী নিহত হয়েছেন।

দেশটির বোর্নিও দ্বীপের একটি চিড়িয়াখানায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে বিবিসি জানিয়েছে।

কয়েকদিন ধরে টানা ব্যাপক বৃষ্টিপাতের কারণে স্থানীয় সময় শুক্রবার রাতে একটি ভূমিধস হলে সিনাকা চিড়িয়াখানার বাঘের ঘের ক্ষতিগ্রস্ত হয়, এই সুযোগে সেখানে থাকা ১৮ মাস বয়সী দুটি বাঘিনী বাইরে বের হয়ে যায়।

শনিবার চেতনানাশক দিয়ে একটি বাঘকে কাবু করে ধরা হয়। কিন্তু অন্য বাঘটি আক্রমণাত্মক আচরণ করতে থাকায় ও চেতনানাশক দিয়ে কাবু করা না যাওয়ায় সেটিকে গুলি করে মারা হয়।

আগের দিন রাতে বাঘ দুটি বের হয়ে যাওয়ার পর ঘেরটির কাছে ৪৭ বছর বয়সী ওই চিড়িয়াখানাকর্মীকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। তার শরীরে কামড়ের ক্ষত ও নখের দাগ ছিল বলে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে।

এর আগে ওই ঘেরের কাছে একটি উটপাখি ও একটি বানরসহ বেশ কয়েকটি প্রাণীকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়।

মুক্ত হয়ে যাওয়া বাঘ দুটিকে খুঁজে বের করতে পশ্চিম কালিমান্তান প্রদেশের সিংকাওয়াং শহরে বড় ধরনের অভিযান শুরু করা হয়। পুলিশ নিকটবর্তী পর্যটনক স্থানগুলো বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয় এবং স্থানীয়দের বাড়িতে অবস্থান করতে বলে।

কর্মকর্তারা প্রাণী দুটিকে জীবিত ধরতে চেয়েছিলেন, কিন্তু একটিকে গুলি করে মারতে বাধ্য হন বলে জানিয়েছেন।

স্থানীয় প্রাণী সংরক্ষণ সংস্থার প্রধান সাদতাতা নুর আদিরাহামান্ত বলেন, “প্রথমে আমরা চেতনানাশক বন্দুক দিয়ে চেষ্টা করেছিলাম কিন্তু সেটি কাজ করেনি, তাই বাঘটিকে গুলি করতে বাধ্য হই কারণ ইতোমধ্যেই এটি খুব আক্রমণাত্মক আচরণ করছিল।

“তাড়া খেয়ে এটি নিকটবর্তী লোকালয়ে চলে যেতে পারে বলে শঙ্কিত ছিলাম আমরা, যদিও এটিকে জীবিত ধরার সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি, তারপরও মানুষের নিরাপত্তার বিষয়টিকেই প্রাধান্য দিয়েছি।”

চিড়িখানার চারপাশে গভীর বনে বাঘ দুটিকে খুঁজে রের করতে ড্রোন ক্যামেরাও ব্যবহার করা হয়েছে।

সুমাত্রান বাঘ মহা বিপন্ন প্রাণী। বর্তমানে বন্য অবস্থায় এ প্রজাতির চারশর কাছাকাছি বাঘ জীবিত আছে বলে ধারণা করা হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য