দিনাজপুর পার্বতীপুরে যাচাই-বাছাইয়ে হাজির হয়ে পালিয়ে গেল অ-মুক্তিযোদ্ধা

দিনাজপুর

দিনাজপুর সংবাদাতাঃ পার্বতীপুরে মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাইকালে বিচারকের পরীক্ষা-নিরিক্ষায় টিকতে না পেরে ৬/৭ অ-মুক্তিযোদ্ধা দৌড়ে পালিয়ে গেছে।

দিনাজপুরের পার্বতীপুরে ৩০ জানুয়ারী শুরু হওয়া প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই কার্যক্রম বৃহস্পতিবার শেষ হয়েছে। পার্বতীপুরে তালিকায় ছিল ১৯৭ জন। পার্বতীপুর উপজেলা পরিষদ হলরুমে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল (জামুকা)’র নির্দেশনা অনুযায়ী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটির সভাপতি ও দিনাজপুর জেলা মক্তিযোদ্ধা কমান্ডের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার বীর মক্তিযোদ্ধা সাইদুর রহমান, সদস্য সচিব ও পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাশিদ কায়সার রিয়াদ, স্থানীয় সংসদ সদস্যের মনোনীত প্রতিনিধি বীর মুক্তিযোদ্ধা সরকার মোহাম্মদ শামীম আক্তার ও জেলা প্রশাসকের পক্ষে মনোনীত যাচাই-বাছাই কমিটির সদস্য- পার্বতীপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা রিয়াজ মাহমুদ যাচাই-বাচাই বোর্ডে উপস্থিত ছিলেন।

সেখানে বিপুল সংখ্যক প্রকৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা ও স্থানীয় জাতীয় দৈনিকের সাংবািদকদের উপস্থিতিতে এ যাচাই বাছাই হয়ে উঠে প্রানবন্ত ও উৎসবমূখর। প্রত্যক্ষ করা গেছে বিচারকরাও কোন পক্ষপাতিত্বের আশ্রয় না নিয়ে স্বচ্ছ ও নিরেপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

অ-মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ্যে সাক্ষ্য দিয়ে যারা তাদেরকে মুক্তিযোদ্ধার তালিকা অন্তভূক্ত করে ভাতাভোগের সুযোগ করে দিয়েছিলো আমি তাদের উদেশ্যে বলেছিলাম মিথ্যা সাক্ষ্য দিলে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধারও ভাতা বন্ধ হবে। এরপর আর কেউ মিথ্যা সাক্ষ্য দিতে আসেনি, উপরের একথা গুলো বলেছেন, দিনাজপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ সাইদুর রহমান।

আজ বৃহস্পতিবার পার্বতীপুর উপজেলা পরিষদ হল রুমের সামনে দাঁড়িয়ে বিকেল ৫টার দিকে এ প্রতিনিধির সামনে কথা বলছিলেন। তিনি বলেন, গত ৩০ জানুয়ারি থেকে পার্বতীপুরে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের নির্দেশনা অনুযায়ী ১৯৭ জন ভাতাভোগী মুক্তিযোদ্ধার তালিকা যাচাই-বাছাই শুরু হয়েছে।

এর মধ্যে গত বুধবার যাচাই-বাছাই বন্ধ ছিলো। বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত মোট ১৪৩ জন বাছাই কমিটির সামনে হাজির হয়েছেন। তবে বৃহস্পতিবার মাত্র ৫ জন হাজির হন। অন্যরা অনুপুন্থিত থাকেন।

বাছাইকৃতদের মধ্যে কত জন ‘ক’ তালিকাভুক্ত হয়েছেন এবং কতজন ‘খ’ ও ‘গ’ তালিকাভুক্ত হয়েছেন জানতে চাইলে সাইদুর রহমান জানান, আগামী রবিবার এ তালিকা সম্পন্ন করে জামুকায় পাঠানো হবে। তখনি জানা যাবে কতজনকে কোন তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য