দিনাজপুর নবাবগঞ্জে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী রাজুর ভাগ্যে জোটেনি কোন সরকারী সুবিধা

দিনাজপুর

নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে দৃষ্টি প্রতিবিন্ধী রাজু মিয়ার(২৬) ভাগ্যে জোটেনি কোন সরকারী সুবিধা। রাজুমিয়া জানায় তার বাড়ী উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নের আমবাগান নামক স্থানে। সেখানে বন বিভাগের জায়গার উপরে একটি টিনের চাল বেড়া দিয়ে তৈরী কুটরি ঘরে মা আনিসা বেগমকে নিয়ে বাস করে। তার পিতার নাম মৃত রহমত আলী।

রাজু মিয়া ৩ ভাইয়ের মধ্যে বড়। ছোট ২ ভাই আলাদা ভাবে খায়। পেটের দায়ে সে এলাকার বিভিন্ন স্থানে ঢোল বাজিয়ে গান গাইয়ে এবং সেই সাথে ভাজা বাদাম বিক্রি করে যা রোজগার হয় তা দিয়েই তার সংসার কোনমতে চলে। রাজুর ভাষায় তার স্ত্রী সন্তান সবই ছিল। অসুস্থতার কারনে ঠিকমত চিকিৎসা সেবার অভাবে তাদের মৃত্যু হয়েছে।

অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরণের কারনে ৮ মাস পূর্বে তার স্ত্রী বিলকিস বেগম কোলের সন্তান রেখে মারা যায়। আর ১ মাস পূর্বে মারা যায় তার আদরের ১০ মাস বয়সী মেয়ে সাদিয়া খাতুন। রাজুর ভাষায় জীবনে সে কোন সরকারী সুবিধা পায়নি। এখন পর্যন্ত তার ভাগ্যে জোটেনি কোন সরকারী সুবিধা। এমন কি করোনাকালীন যে প্রণোদনার খাদ্য সামগ্রী সেটাও সে পায়নি।

শীত মৌসুমে তার ভাগ্যে জোটেনি একটি শীত বস্ত্রও। সে তার অসহায়ত্বের কথা প্রতিনিয়ত এখানে সেখানে বলে বেড়ায়। সে জানায় সম্প্রতি উপজেলা সমাজ সেবা দপ্তর থেকে প্রতিবন্ধী হিসাবে সুবর্ণ কার্ড পেয়েছে।

এ বিষয়ে মাহমুদপুর ইউ,পি চেয়ারম্যান রহিম বাদশাহর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি রাজু মিয়াকে তার সাথে সাক্ষাত করতে বলেন। উপজেলা সমাজ সেবা দপ্তরে যোগাযোগ করা হলে জানানো হয় রাজুর মিয়ার নাম তাদের নিকট রয়েছে এবং তার নাম ভাতাভ’ক্ত করার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য