দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের পার্বতীপুরে সাথী আক্তার (১৪) নামে এক গৃহকর্মীরকে শারীরিক নির্যাতন ও মাথার চুল কেটে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। গুরুতর অসুস্থ্য ওই কিশোরীকে গত বুধবার রাতে পার্বতীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

জানা যায়, উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের খামার জগন্নাথপুর ডাঙ্গাপাড়া এলাকার দিনমজুর সইর আলীর মেয়ে সাথী আক্তার (১৪) নামে ওই গৃহকর্মীকে বছর খানেক আগে বাড়িতে কাজের মেয়ে হিসেবে নিয়ে আসেন পৌর শহরের খোলাহাটি রোড ও সবজি হাটি এলাকার মৃত জহুরুল হকের ছেলে মোঃ সাদরুল ইসলাম। এর পর সাথীকে সাদরুল ও তার স্ত্রী সেলিনা বিভিন্ন সময়ে ঘরবন্দী করে নির্যাতনের পাশাপাশি তার চুল কেটে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেন সাথীর পরিবার।

সাথীর মা মীনা (৬০) এ প্রতিনিকে বলেন, কাজের জন্য তাদের মেয়েকে বাড়িতে নিয়ে আসার পর থেকে সাথীর সাথে তাপর পরিবারের লোকজনকে দেখা করতেও দিতেন না সাদরুল। ঠিকমতো খেতেও দিতেন না বলেও উল্লেখ করেন।

এ ঘটনায় বুধবার রাতে অসুস্থ্য অবস্থায় সাদরুলের বাড়ি থেকে উদ্ধারের পর পার্বতীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন তার মা। মানসিক ও শারীরিক নির্যাতনের শিকার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সাথীকে মানসিক ভারসাম্যহীনের মতো আচরণ করতে দেখা গেছে।

এদিকে, অভিযুক্ত সাদরুল ও তার স্ত্রী সেলিনা ঘটনার বিষয়ে বলেন, সাথী অসুস্থ্য থাকায় তাকে বাড়িতে রেখে চিকিৎসা করিয়েছেন তারা। তাদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সম্পূন্ন মিথ্যা ও বানোয়াট বলে উল্লেখ করেন তারা।

পার্বতীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আব্দুল্লাহেল মাফি বৃহস্পতিবার জানান, গতকাল সন্ধ্যায় ওই কিশোরী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে সাথীর পিতা সইর আলী এ প্রতিনিধিকে জানান।

অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান পার্বতীপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোখলেছুর রহমান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য