লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার ৫ম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ ঘটনায় ধর্ষনের শিকার ওই শিক্ষার্থীর মা রাশিদা বেগম বাদী হয়ে পাটগ্রাম থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

গতকাল দুপুরে ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে ধর্ষনের অভিযোগ দিলে রাতেই ধর্ষক রেজোয়ান (২৫) কে গ্রেফতার করে পাটগ্রাম থানা পুলিশ।
এর আগে শনিবার (৯ জানুয়ারী) উপজেলার শ্রীরামপুর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ড এলাকার রাধানাথ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

ধর্ষক রেজোয়ান শ্রীরামপুর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ড এলাকার রাধানাথ গ্রামের নুর হোসেনের ছেলে বলে জানা গেছে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, কিশোরী ওই মেয়েটির বাবা জোনাব আলী কিছুদিন আগে দিনমুজুরের কাজের জন্য ফেনী যান। তার স্ত্রী রাশিদা বেগমও দিনমুজুরের কাজ করেন। ঘটনার দিন সকালে নাস্তা শেষে মেয়েকে বাড়ীতে রেখে কাজে যান রাশিদা বেগম। এই সুযোগে প্রতিবেশী রেজোয়ান ওই বাড়ীতে এসে কিশোরীকে একা পেয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে ধর্ষিতার মা বাড়িতে এলে তার মাকে সব বলে দেয়।

ওইদিনই ঘটনাটি এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিকে জানিয়ে ধর্ষকের বিচার দাবী করেন রাশিদা বেগম। কিন্তু এলাকার প্রভাবশালী কিছু ব্যাক্তি ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেস্টা করলে ভাইসচেয়ারম্যান প্রার্থী সাফিউল ইসলাম প্রভাবশালীদের হুমকি ধামকি উপেক্ষা করে ভিকটিমের সাথে কথা বলে তার মা রাশিদা বেগমকেসহ গতকাল দুপুরে থানায় নিয়ে আসেন। ধর্ষিতার মা রাশিদা বেগম বাদী হয়ে একটি ধর্ষন মামলা দায়ের করেন। থানা পুলিশ অভিযোগ পাওয়ার পরে ওইদিন রাতেই অভিযুক্ত রেজোয়ানকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসেন।

পাটগ্রাম থানা ওসি সুমন কুমার মহন্ত ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অভিযোগ পাওয়ার পর পরই অপরাধীকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারী) ভিকটিমের স্বাস্থ্য পরীক্ষার লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানো হবে বলেও জানান তিনি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য