কুড়িগ্রাম জেলার রাজারহাট উপজেলার তিস্তা নদীর বুক জুড়ে গড়ে উঠেছে সবুজের সমারোহ। রবি শস্যে ভরে উঠেছে মাঠের পর মাঠ। কোথাও ভুট্টা আবার কোথাও আলু, বাদামসহ বিভিন্ন ফসলের সবুজ পাতায় এখন দোল খাচ্ছে তিস্তা পাড়ের কৃষকের স্বপ্ন।

রাজারহাটের সাতটি ইউনিয়নের বুক ভেদ করে বয়ে গেছে তিস্তা নদী। বর্ষা মৌসুমে নদীতে পানি থৈ থৈ করলেও শুষ্ক মৌসুমে নদীর চরসহ বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে কৃষকরা ফসল উৎপাদন করেন। বিশেষ করে বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের সিয়াল খাওয়া চর, তৈয়ব খাঁ চর, পাড়া মৌলা চর, রতি চর, আনন্দ বাজার চর। ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়নের বুড়িরহাট চর, খিতাব খাঁ-নাজিমখা ইউনিয়নের রতিদেব সোমনারায়নসহ বিভিন্ন গ্রামে হাজারো কৃষক নদীর চরের জমিতে আলু, ভুট্টা, বাদাম, পিয়াজ, রসুনসহ বিভিন্ন প্রকার ফসল ও শাক-সবজি চাষ করছেন।

এসব এলাকায় তিস্তা নদীর পাড় এখন সবুজে ছেয়ে গেছে। বিশেষ করে আলু, ভুট্টা ও বাদামের সবুজ গাছ কৃষকের চোখে মুখে হাসির ঝিলিক ফুটিয়ে তুলেছে। রবি মৌসুমে আলু চাষে লাভবান হওয়ায় এবার অধিক হারে আলু চাষ করেছেন কৃষকরা।

আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ও ভালো পরিচর্যা করা সম্ভব হলে এবারও আলুর বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছেন বিদ্যানন্দের চরের কৃষকরা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য