সামসউদ্দীন চৌধুরী কালাম, পঞ্চগড় থেকেঃ গত ৮ জানুয়ারি। ২০১৮ সালের এই দিনে বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার। এর আগে ২০১৩ সালের ১১ জানুয়ারি নীলফামারীর সৈয়দপুরে ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং ১৯৬৮ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি শ্রীমঙ্গলে সর্বনি¤œ মাপমাত্রা ২ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছিল। ২০১৯ সালের ৮ জানুয়ারি সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ৭ দশমিক ৬ এবং ২০২০ সালের ৮ জানুয়ারি সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ৮ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করে করে তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার।

কিন্তু কয়েক বছরের তুলনায় এবার পঞ্চগড়ের আবহাওয়া অনেকটাই ভিন্ন। ভর শীত মৌসূমে সে হিসেবে দেখা মিলছে না শীতের। বুধবার তেঁতুলিয়ায় সর্বনি¤œ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ১৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ওইদিন আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকার কারণে দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা কিছুটা কমে দাড়ায় ২৫ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গতকাল বৃহস্পতিবার তেঁতুলিয়ায় সর্বনি¤œ তাপমাত্রা বুধবারের চেয়ে ২ দশমিক ২ ডিগ্রি কমে দাড়িয়েছে ১১ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। এটিও গতকালের দেশের সর্বনি¤œ তাপমাত্রা।

বৃহস্পতিবারও পঞ্চগড়ের আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকায় সূর্যের উত্তাপ কম ছড়িয়েছে। তবে উত্তরের হিমেল বাতাস প্রবাহিত না হওয়ায় শীতের তীব্রতাও কম অনুভূত হয়েছে। বিকেল ৩ টায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করে তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার। বৃহস্পতিবার সকালের মত আজ শুক্রবার সকালেও একই ধরণের আবহাওয়া বিরাজ করলে সর্বনি¤œ তাপমাত্রা খুব বেশি একটা কম হওয়ার সম্ভাবনা নেই।

তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের সিনিয়র আবহাওয়া পর্যবেক্ষক জীতেন্দ্র নাথ রায় জানান, পঞ্চগড় জেলা হিমালয়ের খুব কাছে অবস্থান হওয়ায় সর্বনি¤œ তাপমাত্রা নির্ভর করে উত্তরের হিম বাতাসের ওপর। ২০১৮ সালের ৮ জানুয়ারিতে উত্তরের সাইবেরিয়ান বাতাস হিমালয়ে ধাক্কা লেগে দক্ষিণে প্রবাহিত হওয়ায় সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ইতিহাস তৈরী করে। ওইদিন এখানে দেশে ইতিহাসের সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। পরবর্তি বছরের এই দিন গুলোতে উত্তরের কনকনে হিমেল বাতাস কম প্রবাহিত হওয়ায় সেই রেকর্ড আর ছুঁতে পারেনি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য