আনোয়ার হোসেন আকাশ রাণীশংকৈল থেকেঃ বিগত ৩৩ বছরের দূর্ভোগ অবশেষে অবসান হতে যাচ্ছে ঠাকুরগাঁও রাণীশংকৈল উপজেলার হোসেগাঁও – লেহেম্বা ইউনিয়নের প্রায় দশটি গ্রামের মানুষের। রাউতনগর বাজার ও রসুনপুর বিরাশি বম্মপুরসহ প্রায় দশটি গ্রামের প্রায় অর্ধলাখ মানুষের রাউতনগর বাজারে আসার কুলিক নদীর উপর থাকা ভাঙা সেতুটি অবশেষে নতুন করে নির্মাণ প্রক্রিয়া কাজ শুরু হতে চলছে।

সেতু নির্মাণের প্রক্রিয়া শুরু হওয়ায় স্থানীয় যুবক দুলাল হাবিব নাজমুল বলেন, ১৯৮৬ সালে রাউতনগর-রসুনপুর গ্রামের মধ্যেখানে কুলিক নদীর উপর বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের অর্থায়ানে সুইচগেট ওভারকাম সেতু নির্মাণ হয়। পরে ১৯৮৭ সালের বন্যায় এটি ভেঙে যায়। সেতু ভেঙে যাওয়ায় রসুনপুরসহ আশপাশের প্রায় দশটি গ্রামের রাউতনগর বাজারে আসতে চরম সমস্যায় পড়তে হয়। এছাড়াও স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের চরম বিড়াম্বনায় পড়তে হয়। কৃষকরাও তাদের আবাদকৃত মালামাল বাজারে নিয়ে আসতে বিড়াম্বনায় পড়তো। বর্ষার সময় স্থানীয় উদ্যোগে নৌকা ও সাকো নির্মাণে চলতো পারাপার। আর খোড়া মৌসুমে পানি বেয়ে সকলকেই পারপার হতে হয়। সেতুটি নির্মাণ হলে দূর্ভোগের অবসান হবে জানিয়ে তারা স্থানীয় সাংসদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

উপজেলা এলজিইডি অফিস সুত্রে জানা যায়, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর(এলজিইডির) এর সদর দপ্তরের নির্দেশনায় ভাঙা সেতুটির জায়গায় আবারো নতুন করে সেতু নির্মাণের লক্ষে মাটি পরীক্ষার কাজ ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে। মাটি পরীক্ষার টিম প্রায় মাসখানেকের মত সেখানে অবস্থান করে মাটি পরীক্ষার কাজ করে একটি প্রতিবেদন তৈরী করে সদর দপ্তরে জমা দেবে। এলজিইডি অফিস আরো জানায়, ইতিমধ্যে সেতুটির পরিবেশগত বিশ্লেষণ পরীক্ষা ইতিমধ্যে সর্ম্পন্ন হয়েছে। মাটি পরীক্ষার পরেই সেতুটির ডিজাইন হবে । এর পর টেন্ডার হলেই নিয়ম অনুযায়ী কাজ শুরু হবে। সেতুটি ১২০ মিটার দৈর্ঘ্যর নির্মাণ করার প্রস্তাবনা রয়েছে।

হোসেনগাঁও ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মাহবুব আলম মঙ্গলবার(২৯ ডিসেম্বর) মুঠোফোনে বলেন, সেতুটি নির্মাণের অনুমোদন ইতিমধ্যে হয়েছে। বর্তমানে মাটি পরীক্ষার কাজ চলছে, শেষ হলেই টেন্ডার হবে । এবং নির্মাণ কাজ শুরু হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য