দিনাজপুর সংবাদাতাঃ “জঙ্গীবাদ রুখবই-সোনার বাংলা গড়বই” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে ২৪ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার বালুবাড়ী এমবিএসকে মিলনায়তনে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলোর একমাত্র সমন্বয়কারী প্রতিষ্ঠান এডাব দিনাজপুর জেলা শাখার আয়োজনে “সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ প্রতিরোধে চাই তারুণ্যের শক্তি ও সামাজিক সম্প্রীতি”-শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

এডাব দিনাজপুর জেলা শাখার সভাপতি এবং এমবিএসকে’র নির্বাহী প্রধান মোসাঃ রাজিয়া সুলতানা খাতুন এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন দিনাজপুর জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ আসিফ মাহমুদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ইমদাদ সরকার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মোঃ আসলাম উদ্দিন, কোতয়ালী থানার অফিসার ইনজার্চ (তদন্ত) মাহবুবুর রহমান।

এডাবে’র বিষয় আলোচনা করেন এডাব প্রধান কার্যালয় ঢাকার কর্মসূচী পরিচালক মোঃ কাওসার আলম। সেমিনারে মূল বিষয়বস্তু তুলে পাওয়ার পয়েন্টে উপস্থাপনা করেন এমবিএসকে’র এইচআর কর্মকর্তা মোর্শেদা পারভীন মলি। প্রবন্ধের উপরে মুক্ত আলোচনা করেন সেক্টর কমান্ডার ফোরামের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, জেলা জাসদের সাধারন সম্পাদক সহিদুল ইসলাম শহিদুল্লাহ, ওয়ার্কার্স পার্টির সদস্য রবিউল আউয়াল খোকা, সৈয়দ মনসুরুল হোসেন ডাবলু, জেএসকেএস’র নির্বাহী পরিচালক মোস্তাফা কামাল, কাম টু ওয়ার্কের নির্বাহী পরিচালক মতিউর রহমান ও সিডিসির নির্বাহী পরিচালক যাদব চন্দ্র রায়।

সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন রংপুর বিভাগীয় এডাব সমন্বয়কারী বঙ্কিম চন্দ্র রায়। বক্তারা বলেন, জঙ্গীবাদ হচ্ছে ভ্রান্ত মতাদর্শ প্রতিষ্ঠার একটি সহিংস প্রন্থা। নিজেদের মতাদর্শ প্রতিষ্ঠার জন্য উগ্র মহাদর্শের ব্যক্তি বা গোষ্ঠী দ্বারা পরিচালিত ধ্বংসাত্বক ও জীবননাশক কার্যক্রমই হচ্ছে জঙ্গীবাদ।

কোন রাজনীনৈতিক মা ধর্মীয় আদর্শিক লক্ষ্য হাসিলের জন্য সন্ত্রাসী বা হিংসাত্বক কর্মকান্ডই হলো জঙ্গীবাদ। জঙ্গীবাদ একটি বৈশ্বিক সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাদের কারণে পুরো জাতি আজ শংকিত এবং আতঙ্কিত। যারা জঙ্গী তৎপরতা চালাচ্ছে বা ইতিমধ্যেই জঙ্গীবাদের দিক্ষা নিয়েছে তাদের চিহ্নিত করা এবং তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনী পদক্ষেপ নেওয়া জরুরী।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য