দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে বুধবার বিকেলে শোওয়ার ঘর থেকে ওড়না প্যাচানো ও ঝুলন্ত অবস্থায় এক সন্তানের জননীর লাশ উদ্ধার করেছে বীরগঞ্জ পুলিশ। এ ব্যাপারে আত্মহত্যার জন্য দায়ী দুই চাচা, মামা ও মৃতের স্বামীকে আটক করা হয়।

উপজেলার পাল্টাপুর ইউনিয়নের খামার মধুবনপুর গ্রামের আমিনুল ইসলামের ২য় স্ত্রী এক সন্তান আবির(৫) এর জননী রোছিনা খাতুন (২৫) এর লাশ তার বাবার বসত বাড়ীর শোয়ার ঘরে গলায় উড়না প্যাচানো অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ সুরতহাল লিপিবদ্ধ শেষে লাশ ময়না তদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করেছে।

তদন্তকারী অফিসার এসআই আকবর আলী সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মৃত্যুর জন্য দায়ী দুই চাচা মোঃ সাদেক আলী, মোহাম্মদ আলী, মামা হবিবর রহমান হবি ও সন্দেহমূলক ভাবে স্বামী আমিনুল সহ ৪ জনকে আত্মহত্যার জন্য দায়ী করে তাদের সকলকেই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক ও গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মৃতের পিতা মাদ্দেজ আলী বাদী হয়ে ৬ জনকে বিবাদী করে বীরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে, যার নং ০৯ তাং-১৬.১২.২০২০ইং।

এলাকাবাসীর সুত্রে ঘটনার বিবরণে জানা যায়, মৃতের পরিবারের সাথে বাপ-চাচাদের জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ঘটনার আগের দিন মঙ্গলবার গভীর রাতে স্থানীয় মাত্বর চক্রের একটি প্রহসনের বিচার – বৈঠক বসে।

উক্ত বৈঠকে মানসিক বিকারগ্রস্ত বৃদ্ধ পিতা মাদ্দেজ আলি, প্রতিবন্ধী ২ ভাই বোন ও মা সুফিয়া বেগম সহ এই পরিবারটির জীবন- জীবিকার একমাত্র অবলম্বন রোছিনাকে বিভিন্নভাবে দোষারোপ, অপমান, অপদস্ত করে ও পরদিন সকালের মধ্যে পিত্রালয় ত্যাগ করে স্বামীর গহে চলে যাওয়ার হুমকি দিয়ে মৃতের সংগ্রহকৃত জমিজমার যাবতীয় দলিলপত্রাদি জোরপূর্বক ছিনিয়ে নেয়ায় শোক, লজ্জা, মানষিক চাপ সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয় রোছিনা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য