সামসউদ্দীন চৌধুরী কালাম, পঞ্চগড় থেকেঃ শীতকালের শুরুতেই উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ে জেঁকে বসেছে শীত। মাঝখানে কয়েকদিন বিরতি দেয়ার পর গত তিন দিন ধরে আবারও কমতে শুরু করেছে পঞ্চগড়ের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। গতকালও দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে পঞ্চগড়ে।

বৃহস্পতিবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করেছে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পযবেক্ষণাগার। এর আগে গত মঙ্গলবার তেঁতুলিয়ায় দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং বুধবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা তেঁতুলিয়ায় ছিল ১২ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিকে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কমার সাথে সাথে কমছে সর্বোচ্চ তাপমাত্রাও। গত বুধবার তেঁতুলিয়ায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৪ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমে দাড়ায় ২০ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। সর্বনিম্ন ও সর্বোচ্চ তাপমাত্রা কমে আসার কারণে বাড়ছে শীতের তীব্রতা। আজ শুক্রবার তাপমাত্রা মাত্র দশমিক ৫ ডিগ্রি কম হলেই পঞ্চগড়ে শুরু হয়ে যাবে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ এমনটাই জানিয়েছে তেঁতুলিয়া আবহাওয়া অফিস।

গতকাল বৃহস্পতিবার ভোররাত থেকেই ঘন কুয়াশায় ঢাকা ছিল গোটা এলাকা। দুপুরের আগ পর্যন্ত সড়ক মহাসড়কে হেডলাইট জ্বালিয়ে যানবাহন চলাচল করতে দেখা গেছে। বেলা দেড়টার দিকে সূর্যের দেখা মিললেও উত্তাপ ছিল না উত্তরের কনকনে হিম বাতাসের কারণে। বিকেল পাঁচটায় এ রিপোর্ট লেখার সময় পর্যন্ত দিনের বেলাতেই রাতের মত শীত অনুভূত হচ্ছিল। শীতবস্ত্রের অভাবে সকাল থেকে সারাদিনই গ্রামাঞ্চলের মানুষদের খড়কুটো জ্বেলে শীত নিবারণের চেষ্টা করতে দেখা গেছে।

শীতের প্রকোপ বাড়ার সাথে সাথে জেলার নি¤œ আয়ের মানুষের ভোগান্তিও বেড়েছে। ঘন কুয়াশা আর কনকনে হিম শীতল আবহাওয়ার কারণে শ্রমিকরা মাঠে কাজে যেতে পারছে না। সবচেয়ে বিপদে রয়েছে নদী থেকে পাথর তোলা শ্রমিকরা। তীব্র শীতের কারণে কয়েকদিন ধরে তারা নদীতে নামতে পারছে না।

এতে করে তারা পরিবার পরিজন নিয়ে কষ্টে দিন কাটাচ্ছে। শীতবস্ত্রের জন্য সর্বত্র হাহাকার শুরু হয়েছে গোটা জেলায়। ইতোমধ্যে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সরকারিভাবে ২২ হাজার শীতবস্ত্র শীতার্তদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। কিন্তু তা এ জেলার বিরাট অঙ্কের দরিদ্র শীতার্তদের তুলনায় খুবই অপ্রতুল। সীমিত আকারে বেসরকারী পর্যায়ে শীতবস্ত্র বিতরণ শুরু হয়েছে।

আরিজ এইড নামের একটি স্বেচ্ছাসেবি সংগঠন তেঁতুলিয়া উপজেলার দুইশ’ মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র হিসেবে কম্বল বিতরণ করেছে। গত বুধবার সকালে খয়খাট পাড়া নুরানী তালেমুল কুরআন মাদ্রাসা মাঠে তারা এসকল শীতার্তদের মাঝে এসব শীতবস্ত্র বিতরণ করে। আটোয়ারীতে দুই শতাধিক ছিন্নমুল মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেছে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ‘গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে’র সহযোগিতায় তারা আলোয়াখোয়া ইউনিয়নের পিএম পাড়া এলাকায় এসকল শীতবস্ত্র বিতরণ করে।

তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. রাসেল শাহ বলেন, তিনদিন ধরে তেঁতুলিয়ায় দেশের সর্বনি¤œ তাপমাত্রা বিরাজ করছে। দিন ও রাতের তাপমাত্রা কমে আসায় বেশি শীত অনুভূত হচ্ছে। দিনে-রাতে হিমালয় থেকে আসা হিম শীতল বাতাসের কারণে শীতের তীব্রতা বাড়ছে। আগামী কয়েকদিন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা আরও অনেক কমে যেতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য