কোভিড-১৯ মহামারী স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উপর ভয়াবহ চাপ সৃষ্টি করায় জাপানের রাজধানী টোকিওর কর্তৃপক্ষ চিকিৎসা প্রস্তৃতির ক্ষেত্রে সতর্কবস্থার মাত্রা বাড়িয়ে সর্বোচ্চ পর্যায়ে উন্নীত করেছে।

বৃহস্পতিবার শহরটির কর্তৃপক্ষ ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ৮২২ জনের দেহে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্তের খবরও দিয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

টোকিওর এক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানিয়েছেন, হাসপাতালের শয্যাগুলো রোগীতে পূর্ণ হয়ে যাওয়ায় অন্যান্য রোগী এবং কোভিড-১৯ রোগীদের সেবায় ভারসাম্য রাখা যাচ্ছে না। যে কারণে প্রথমবারের মতো চিকিৎসা প্রস্তুতির ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সতর্কবস্থা দিতে হয়েছে।

“কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা কমানোই এখন একমাত্র পথ,” টোকিওর গভর্নর ইয়ুরিকো কোইকের উপস্থিতিতে হওয়া করোনাভাইরাস পর্যবেক্ষণ কমিটির এক বৈঠকে এমনটাই বলেছেন টোকিও মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের ভাইস চেয়ার মাসাতা ইনোকুচি।

টোকিওর মেট্রোপলিটন সরকার জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার তারা নতুন ৮২২ জনের দেহে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি পেয়েছে; এটি আগেরদিনের ৬৭৮ জনের রেকর্ডকেও ছাড়িয়ে গেছে।

গত মাসে শহরটির কর্তৃপক্ষ ভাইরাস সংক্রমণ ক্যাটাগরিতে শহরের সতর্কবস্থার মাত্রা সর্বোচ্চ স্তরে উন্নীত করেছিল। সে সময় চিকিৎসা প্রস্তৃতির ক্ষেত্রে সতর্কবস্থার মাত্রা ছিল দ্বিতীয় সর্বোচ্চ স্তরে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য