Sromikবীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ বীরগঞ্জে বুধবার জিগজ্যাক ইট ভাটার গ্যাসে পুড়ে যাওয়া ধানক্ষেতের ক্ষতি পুরনের আশায় দলে দলে কৃষক দ্বারে দ্বারে ফিরছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আবু জাফরের নিদের্শে নিজপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক সরকার ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক ও ভাটা মালিকের সাথে বৈঠক করেছেন। ক্ষতিপুরণ দাবীর পৃক্ষিতে ভাটা মালিক রতন কুমার সাহা রেন্টু মাঠের ধান ঘরে তোলার আগে ক্ষেতের পরিচর্যা করবেন ও মাঠের ধান ঘরে তোলার পরে ২৯ জাতের ধান ১ বিঘার বিপরিতে ২৯মন ও ২৮ জাতের ধান ১ বিঘা বিপরিতে ২১মন ক্ষতি পুরণ প্রদান করার অঙ্গিকার করেন। ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা প্রতিবাদ করে জানান তাদের জমিতে প্রতি বিঘায় কমপক্ষে ৪০মন ধান উৎপাদন হবে তাই তারা খুশী হতে পারছেনা।

উপজেলার নিজপাড়া ইউনিয়নের কৈকুড়ি গ্রামে মের্সাস জ্যোস্ন ব্রিক্সস নামের জিগজ্যাক ইট ভাটা অর্থাৎ হাওয়া ভাটা স্থাপন করা হয়। বর্তমানে ভাটায় ইট উৎপাদন শেষ হওয়ায় গত সপ্তাহে কর্মচারীরা ভাটার গ্যাস ছেড়ে দেন। এতে ছেড়ে দেওয়া গ্যাসে ভাটার আশেপাশের প্রায় একশত বিঘা জমির বোরো ধান পুড়ে য়ায়। এ অবস্থায় গত মঙ্গলবার ১১টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ক্ষতিপুরনে দাবিতে বীরগঞ্জ-গোলাপগঞ্জ সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্থ চাষীরা।

সংবাদ পেয়ে বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আবু জাফর, শিক্ষা অফিসার কখ আলাওল হাদী, উপসহকারী কৃষি অফিসার মোঃ মুক্তার হোসেন এবং বীরগঞ্জ থানার এসআই লুৎফর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ বিক্ষোভকারী কৃষকদের সাথে আলোচনায় বসেন। আলোচনা শেষে বিকেল সাড়ে ৫টায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আবু জাফর ইট-ভাটা মালিককে ৭ দিনের মধ্যে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের ক্ষতিপুরণ দিতে নির্দেশ প্রদান করেন ও ৫ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেন।

৭দিনের মধ্যে কমিটির রির্পোটের ভিত্তিতে কৃষকের ক্ষতির পরিমাণ বিবেচনা করে ভাটা মালিকের কাছ থেকে ক্ষতি পুরণ আদায় করার আশ্বাস দেওয়া হয়। ক্ষতি পুরণ দিতে ব্যর্থ হলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করে কৃষকদের ক্ষতিপুরণ আদায় ও ভাটা বন্ধ করে দেওয়ার প্রতিশ্র“তি দেন। বিক্ষোভকারীদের উদ্যেশ্যে মাইকের মাধ্যমে এমন ঘোষনা দিলে বিক্ষোভকারী কৃষকরা তাদের অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য