লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার শ্রীরামপুর ইউনিয়ন সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) ছোঁড়া গুলিতে গুরুতর আহত হওয়া যুবক আবু তালেব (৩২) মারা গেছেন।

সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) দুপুরে পাটগ্রাম থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ (ওসি) সুমন কুমার মহন্ত মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন ময়না তদন্তের জন্য মরদেহ লালমনিরহাট মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

এর আগে রোববার (১৩ ডিসেম্বর) ভোরে রংপুর মেডিকেলে কলেজে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। গত ১০ ডিসেম্বর ভোরে সীমান্তের ৮৪৪ নম্বর মেইন পিলারের বিএসএফর গুলিতে গুরুতর আহত হন।

সীমান্ত সূত্র ও এলাকাবাসী জানায়, গত ১০ ডিসেম্বর ভোরে সীমান্তের ৮৪৪ নম্বর মেইন পিলারের নিকট দিয়ে ভারতীয় গরু ব্যবসায়ীদের সহায়তায় বাংলাদেশি গরু পারাপারকারীদের ৫/৬ জনের একটি দল ভারত থেকে গরু আনতে যায়। এ সময় ভারতের ১৪৮ চ্যাংরাবান্ধা বিএসএফ ব্যাটালিয়নের পানিশালা ক্যাম্পের টহল দলের সদস্যরা তাদেরকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ে। গুলিতে শ্রীরামপুর ইউনিয়নের ইসলামপুর ডাঙ্গিরপাড় গ্রামের কমর উদ্দিন ওরফে শাহীনের ছেলে আবু তালেব (৩২) গুরুতর আহত হয়। তার সঙ্গীরা আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে গোপনে রংপুরের একটি বেসরকারী ক্লিনিকে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থার পর রোববার ভোরে তার মৃত্যু হয়।

পাটগ্রাম থানা কর্মকর্তা ইনচার্জ (ওসি) সুমন কুমার মহন্ত বলেন, লাশ উদ্ধার করে রোববার ময়না তদন্তের জন্য লালমনিরহাট মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে আবু তালেবের বড় ভাই আবু ছায়েদ একটি মামলা দায়ের করেছে।

এ ব্যাপারে রংপুর ৬১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মোজাম্মেল হকের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য