কানাডায় সোমবার থেকে শুরু হচ্ছে করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি। এর অংশ হিসেবে ফাইজার ভ্যাকসিনের প্রথম চালান পৌঁছেছে দেশটিতে। রবিবার রাতে টুইটারে দেওয়া এক পোস্টে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

কার্গো বিমানের ছবিসহ এক টুইটে ট্রুডো জানান, ফাইজার-বায়োএনটেকের কোভিড টিকার প্রথম চালান কানাডা এসে পৌঁছেছে।

আরেক টুইটে ট্রুডো বলেন, করোনার বিরুদ্ধে আমাদের লড়াই শেষ হয়ে যায়নি। এখন আমাদের আগের চেয়েও বেশি সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, টিকা বহনকারী ফ্লাইটটি মন্ট্রিলের মিরাবেল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। সংবাদমাধ্যম সিটিভি নিউজ জানিয়েছে, সোমবার নাগাদ কানাডায় আরও টিকা পৌঁছানোর কথা রয়েছে।

প্রাথমিকভাবে কানাডার ১০টি প্রদেশের ১৪টি স্থানে এই টিকার ৩০ হাজার ডোজ প্রয়োগ করা হবে। হোম কেয়ার সেন্টারে দীর্ঘদিন অবস্থানকারী প্রবীণ নাগরিক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের অগ্রাধিকারভিত্তিতে এই টিকা দেওয়া হবে।

এদিকে কানাডার পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রেও সোমবার থেকে করোনার টিকাদান কর্মসূচি শুরু হচ্ছে। বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সসহ দেশটির ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তাদের এই টিকা নেওয়ার প্রস্তাব দেবে কর্তৃপক্ষ। রয়টার্স জানিয়েছে, হোয়াইট হাউজের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ও সরকারের তিনটি শাখার নির্দিষ্ট কর্মকর্তাদের আগামী ১০ দিনের মধ্যে ভ্যাকসিন দেওয়ার কথা রয়েছে। মূলত সরকারের কর্মকাণ্ড নির্বিঘ্ন রাখার পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই প্রথমে শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের টিকা দেওয়ার এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

বিদায়ী প্রশাসনের শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিদের মতো করে নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের টিমকেও এই ধরনের প্রস্তাব দেওয়া হবে কিনা সেটি নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি।

ফাইজার/বায়োএনটেক উদ্ভাবিত ভাইরাসটি ৯৫ শতাংশ সুরক্ষা দিচ্ছে বলে জানা গেছে। যুক্তরাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রক সংস্থা খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসনও (এফডিএ) ভ্যাকসিনটিকে নিরাপদ বলে মনে করছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য