সামসউদ্দীন চৌধুরী কালাম, পঞ্চগড় থেকেঃ অগ্রহায়নের শেষে এসে পঞ্চগড়ে জেঁকে বসতে শুরু করেছে শীত। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ঘরে অবস্থান করলেও ঘন কুয়াশার কারণে স্থবির হয়ে পড়েছে জীবনযাত্রা। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত ঘন কুয়াশায় ঢাকা পড়ছে গোটা জেলা। দুপুরের আগ পর্যন্ত দেখা মিলছে না সূর্যের।

সকাল নয়টার আগে ঘন কুয়াশার কারণে সড়ক-মহাসড়কে ধীরগতি নিয়ে চলছে যানবাহন। বিকেলে সূর্যের আলো থাকলেও হিমালয় থেকে আসা হিম শীতল বাতাসে উবে যাচ্ছে সূর্যের তাপ। বিকেল হতেই খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করতে দেখা গেছে গ্রামের মানুষদের।

শনিবার সন্ধ্যা থেকে হালকা কুয়াশা শুরু হলেও মধ্য রাতের পর ঘন কুয়াশার চাঁদরে ঢেকে যেতে শুরু করে পঞ্চগড়। রাত যতই বেড়েছে, কুয়াশার চাঁদর ততই ভারী হয়েছে। সকাল ১০টার আগে দেখাই যায় না সূর্যের মূখ।

এরপর কুয়াশার ফাঁকে সূর্যের দেখা মিললেও উত্তাপ ছড়াতে শুরু করে দুপুরে। রোববার বেলা দুইটার পর আবারও মেঘের কোলে হারিয়ে যায় সূর্য। মাঝে মধ্যে উঁকি মারলেও উত্তরের হিম শীতল বাতাসের কারণে গায়ে কাঁপন শুরু হয়। বিকেল থেকেই ফাঁকা হতে থাকে বাজার-ঘাট।

আবহাওয়া অফিসের তথ্য মতে, গতকাল শনিবার দেশের সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ১৩ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয় টাঙ্গাইল ও গোপালগঞ্জে। আর তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণগার সর্বনি¤œ তাপমাত্রা রেকর্ড করে ১৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ঘরে থাকলেও কনকনে হিম শীতল বাতাসে কাহিল মানুষজন। ঘন কুয়াশার কারণে তুলনামূলকভাবে শীত কিছুটা কম অনুভূত হলেও আগামি দুই-তিন দিনের মধ্যে ছিটেফোটা বৃষ্টি হয়ে কুয়াশা কেটে নামবে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ এমনটাই জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য