শীতের তীব্রতায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে কুড়িগ্রামের জনজীবন। শীত আর কুয়াশায় মানুষজন দুর্ভোগে পড়েছে। বুধবার কুয়াশাচ্ছন্ন সকাল থেকে মিলছেনা সূয্যের দেখা।

এই ঠান্ডা বাতাসে বিপাকে পড়েছে চরাঞ্চলবাসীসহ খেটে খাওয়া মানুষজন। এতে করে রাস্তা-পথে মানুষের উপস্থিতি ছিল খুবই কম। শীত বৃদ্ধি পাওয়ায় বৃদ্ধ-শিশুরা শীতজনিত নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

রাজারহাট আবহাওয়া অধিদপ্তরের পর্যবেক্ষক সুবল চন্দ্র সরকার জানান, বুধবার সকালে তাপমাত্রা ছিল ১২.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। চলতি মাসে তাপমাত্রা আরো কমতে পারে বলে জানান।

এদিকে, ঘন কুয়াশার কারণে সড়কে হেড লাইট জ্বালিয়ে যানবাহন চলাচল করতে দেখা গেছে। শীতের আগমনে জেলার বিভিন্ন বাজার ও সড়কের পাশে জমে উঠেছে মৌসুমি কাপড় ব্যবসা। মানুষজন শীতের কাপড় কিনতে দোকানগুলোতে ভিড় করছেন। ক্রোকারিজ ও হার্ডওয়্যার দোকানগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শীত বাড়তে থাকায় চাহিদা বেড়েছে ইলেক্ট্রিক কেটলি (ওয়াটার হিটার) ও গ্রিজারের। ব্যস্ততা বেড়েছে ধনুকারদেরও। বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনগুলো ইতোমধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ শুরু করেছে।

রাজারহাট আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের পর্যবেক্ষক সুবল চন্দ্র জানান, আপাতত কুয়াশার পরিমাণ বাড়তে থাকলেও শৈত্যপ্রবাহ নেই। তবে চলতি মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে মাসের শেষ পর্যন্ত জেলায় একাধিক শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। সে সময় তাপমাত্রা আরও হ্রাস পাবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য