৯ ডিসেম্বর নারী জাগরণের অগ্রদূত বেগম রোকেয়ার জন্ম ও মৃত্যু দিবস। এবারে রোকেয়া দিবসে সরকারী ভাবে তিন দিন ব্যাপি উম্মুক্ত কোন আনুষ্ঠানিকতা হচ্ছেনা রোকেয়ার জন্মভুমি পায়রাবন্দে।

রংপুর জেলা প্রশাসনের আয়োজনে বিগত বছরগুলোতে যথাযথ মর্যাদায় দিবসটি পালিত হলেও এবার বারের মত রোকেয়া দিবস উদযাপন উপলক্ষে ৩ দিনের মেলার কার্যক্রম স্থগিত করেছেন জেলা প্রশাসন।

৯ ডিসেম্বর করোনাকালীন সময়ের জন্য সরকারী সিদ্ধান্তে উম্মুক্ত ভাবে জনসমাগম যাতে না হয় সেদিক বিবেচনা করে ৩ দিন ব্যাপি রোকেয়া মেলা বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে নারী জাগরনের অগ্রদূত মহিয়সী বেগম রোকেয়ার জন্ম ও মৃত্যু দিবস পালন উপলক্ষে তার জন্মভুমি রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার পায়রাবন্দে রাখা হয়েছে ১ দিনের আংশিক কর্মসূচি।

কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ৯ ডিসেম্বর সকালে পায়রাবন্দে বেগম রোকেয়ার স্মৃতি স্তম্ভে নিজ নিজ দায়িত্বে পুস্প্যমাল্য অর্পণ, স্থানীয় জামে মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল ও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ভিডিও কন্ফারেন্স এর মাধ্যমে রোকেয়া দিবসের আলোচনা অনুষ্ঠান হবে বলে পায়রাবন্দ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ফয়জার রহমান জানিয়েছেন।

এদিকে বেগম রোকেয়া স্মৃতি কেন্দ্রের উপ-পরিচালক আব্দুল্যাহ আল-ফারুক জানান, মেলা না হলেও স্বাস্থ্য বিধি মেনে সংক্ষিপ্ত ভাবে রোকেয়া দিবস পালন করবেন তারা।

১৮৮০ সালের ৯ ডিসেম্বর রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার পায়রাবন্দ ইউনিয়নের খোর্দ্দমুরাদপুর গ্রামে জমিদার পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন বেগম রোকেয়া ।তার বাবার নাম জহির উদ্দিন মোহাম্দদ আবু আলী হায়দার সাবের ও মাতা রাহাতুন্নেছা সাবেরা চৌধুরাণী। পর্দার আড়ালে থেকে শিক্ষা লাভ করেন তিনি।কম বয়সেই রোকেয়ার বিয়ে হয় খাঁন বাহাদুর সাখাওয়াত হোসেনের সাথে।

১৯১০ সালের দিকে কলকাতায় চলে যান রোকেয়া। ২৮ বছর বয়সে স্বামী হারান তিনি। ১৯৩২ সালের ৯ ডিসেম্বর কলকাতার সোদপুরে মারা যান বেগম রোকেয়া মাত্র ৫২ বছর বয়সে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য