দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরে প্রেম ঘটিত কারণে প্রেমিকাকে কুপিয়ে, আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ও ইট দিয়ে আঘাত করে হত্যা মামলায় মাহফুজ আলম ওরফে মানিক নামে এক প্রেমিককে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ডর ও ২০ হাজার জরিমানা অনাদায়ে আরও ১ বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ডের রায় দিয়েছেন বিচারক।

আজ রোববার (২২ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে ৩টায় দিনাজপুরের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আজিজ আহমদ ভুঞা আসামীর উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষণা করেন।

আসামী মানিক দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলার চাকাই গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে আসামী মানিকের সাথে একই উপজেলার শীতলাই চৌধুরীপাড়া গ্রামের আব্দুল মালেকের কন্যা রোমানা আক্তার মৌ’র সাথে প্রেম চলে আসছিল। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে ভুল বুঝাবুঝি হলে তাদের প্রেমের সম্পর্ক নষ্ট হয়ে যায়।

এরই মধ্যে মানিক বিয়ে করে ২ সন্তানের বাবা হন। কিন্তু তার পরও রোমানা আক্তার মৌ’র প্রতি কার আকর্ষণ ছিল। ২০১৫সালের ১৬ জুলাই সন্ধ্যার পর মৌ মার্কেটে ঈদের কেনাকাটা করে বাড়ী ফেরার সময় মৌ’র বাড়ীর অদূরে কালীরডাঙ্গা নামকস্থানে আসামী মানিক মৌকে আটক করে গল্প করছিল। গল্পের এক পর্যায মানিক ব্যাগ থেকে ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে রোমানা আক্তার মৌকে গুরুতর আহত করেন।

এ সময় মৃত্যু নিশ্চিত করতে মানিক মৌ’র গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতেও তার মৃত্যু না হওয়ায় ইটদিয়ে আঘাত করে মৃত্যু নিশ্চিত করে মটরসাইকেল যোগে পালিয়ে যায় মানিক। এই ঘটনায় নিহত মৌ’র বাবা আব্দুল মালেক বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামীদের উল্লেখ করে ১৭ জুলাই মামলা দায়ের করেন।

রোমানা আক্তার মৌ’র ডায়েরী দেখে অভিযান চালিয়ে ২৬ জুলাই আসামী মানিক র‌্যাব আটক করে। ২৭জুলাই তাকে আদালতে সোপর্দ করলে তিনি সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেটের নিকট নিজের দোষ স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করেন।

স্বাক্ষি প্রমাণ শেষে বিচারক আজ রোববার আসামীর উপস্থিতিতে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ডের রায় প্রদান করেন। একই সাথে তাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ১ বছর কারাদন্ডের রায় প্রদান করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) রবিউল ইসলাম রবি ও আসামী পক্ষে এ্যাড.শফিউল আলম পরিচালনা করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য