বিয়ের পর নারী-পুরুষের জীবনে কিছু দৃশ্যমান পরিবর্তন পরিলক্ষিত হয়। এ সময় নারী- পুরুষের শরীরে ওজন বৃদ্ধি পায়। ফলে পোশাক-আশাকে একটু আঁটসাঁট দেখা যায়। শরীর বেশ ভারী লাগতে থাকে। বিয়ে কিংবা সম্পর্কে জড়ালে ওজন বেড়ে যায়, এমন ফলাফল পাওয়া গেছে যুক্তরাষ্ট্র এক জরিপে।

দুই হাজার মানুষের ওপর চালানো ওই জরিপে দেখা গেছে, তাদের ৭৯ শতাংশেরই ১৬ কেজির মতো ওজন বেড়েছে সম্পর্ক শুরুর পর। এই ওজনটাকে বলা হচ্ছে ‘লাভ ওয়েইট’ বা ‘ভালোবাসার ওজন’। সম্পর্কের প্রথম বছরেই এই ওজন বাড়তে দেখা যায়।

পুরুষের ওজন এ ক্ষেত্রে বেশি বাড়ে। ৬৯ শতাংশ পুরুষের এবং ৪৫ শতাংশ নারীর এভাবে ওজন বাড়তে পারে। কিন্তু এ রকম ওজন বাড়ার কারণ কী?

গবেষকরা জানান, প্রেম করার সময়ে বাইরে অনেক খাওয়া হয়। এ কারণেই ওজন বেড়ে যায়।

অনেকেই দাবি করেন, প্রেমের পর তাদের মনে হয়, এখন তো ভালোবাসার মানুষ বা জীবনসঙ্গী পেয়ে গেছেন, এখন ওজন কমানোর কষ্ট না করলেও চলবে। সাধারণত সম্পর্ক দেড় বছরে গড়ালে এমন মানসিকতা দেখা দেয়।

বিয়ের ক্ষেত্রেও একই ব্যাপার দেখা যায়। ৫৭ শতাংশ মানুষ জানায়, বিয়ের প্রথম বছরে গড়ে ৭.৭ কেজি ওজন বাড়ে তাদের। এক্ষেত্রে নারীর তুলনায় পুরুষের ওজন বেশি বাড়ে। বেশিরভাগ ওজন বাড়ে বিয়ের পর পাঁচ বছর হলে। এ সময়ে সাধারণত বেশিরভাগ দম্পতি বাচ্চা নেন এবং শরীরের প্রতি তেমন মনোযোগ দেন না। বিয়ের ক্ষেত্রে অনেক ভারী ভারী খাবার খাওয়া হয় কিছুদিন। বিয়ের পর পর দাওয়াত খাওয়ার পরিমাণটাও বাড়ে। এর ফলে ওজন বাড়তে পারে।

ওজন বাড়লেও, সিঙ্গেল মানুষের তুলনায় প্রেমিক-প্রেমিকা বা দম্পতিদের সার্বিক স্বাস্থ্য ভালো হতে দেখা যায়।

যে শীর্ষ ৬টি কারণে বিয়ের পর ওজন বাড়ে:

১) সংসার শুরু করা

২) রান্নার সময় না পেয়ে বা বেড়াতে গিয়ে বাইরের খাবার খাওয়া

৩) সুখে থাকার কারণে ওজন নিয়ে চিন্তা না করা

৪) কর্মক্ষেত্রে স্ট্রেস

৫) ঘুমের অভাব

৬) সম্পর্কে টানাপোড়েন

(সূত্র: আইএফএলসায়েন্স)

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য