নীলফামারী ডোমারে সুরাইয়া আক্তার ওরফে নাজমুন নাহার (২০) নামের এক গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে হরিণচড়া ইউনিয়নের খানাবাড়ী এলাকার আবু সাঈদের স্ত্রী ও নীলফামারী সদর সোনারায় ইউনিয়নের বানিয়াপাড়া এলাকার নজরুল ইসলামের মেয়ে। বুধবার(১৮নভেম্বর) রাত পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলা মর্গে পাঠায়। বৃহষ্পতিবার বিকালে ডোমার থানায় হত্যার সন্দেহে একটি লিখিত অভিযোগ করে সুরাইয়ার বাবা নজরুল ইসলাম।

সুরাইয়া আক্তার ও আবু সাঈদের সাথে নয় মাস আগে আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ে হয়। বুধবার আবু সাঈদ বন্ধুদের সাথে পাশ্ববর্তী ডালিয়া বেড়াতে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। এ সময় স্বামীর সাথে বেড়াতে যেতে বায়না ধরে সুরাইয়া আক্তার। স্ত্রীকে বাড়ীতে রেখে বন্ধুদের সাথে ডালিয়ায় বেড়াতে যায় আবু সাঈদ।

বেড়াতে নিয়ে না যাওয়ায় স্বামীর উপর অভিমান করে সন্ধ্যায় নিজ শোয়ার ঘরের স্বরের সাথে গলায় ওড়না পেচিয়ে আত্মহত্যা করে সুরাইয়া। বাড়ির লোকজন তার ঝুলন্ত দেহ দেখে পুলিশে খবর দেয় বলে নিহতের শ্বশুরবাড়ির লোকজন জানায়।

এদিকে মৃত গৃহবধূর বাবা নজরুল ইসলাম বৃহষ্পতিবার বিকালে ডোমার থানায় মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে মর্মে একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

ডোমার থানা কর্মকর্তা ইনচার্জ মোঃ মোস্তাফিজার রহমান গৃহবধুঁর মরদেহ উদ্ধার ও লিখিত অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, রাতেই একটি ইউডি মামলা হয়েছে। তদন্ত চলছে। ভিসেরা রিপোর্ট আসার পর হত্যা না আত্মহত্যা তা জানা যাবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য