বাংলাদেশে শীতের সময় করোনাভাইরাসের আরেক দফা সংক্রমণ বৃদ্ধির আশঙ্কা করা হচ্ছে সরকারের পক্ষ থেকে। এজন্য নানা প্রস্তুতির কথা বলা হয়েছে। গত কিছুদিন ধরে নতুন সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যাও বৃদ্ধি পেতে দেখা গেছে।

শীতপ্রধান দেশগুলোতেও বাড়ছে নতুন আক্রান্তের সংখ্যা। তবে বাংলাদেশ ও ভারতের মতো দেশগুলোয় গরমের সময়েও করোনাভাইরাসের ব্যাপক বিস্তার দেখা গেছে।

শীত বা ঠাণ্ডার সঙ্গে করোনাভাইরাসের কোন সম্পর্ক রয়েছে বলে এখনো পুরোপুরি প্রমাণিত হয়নি। তবে করোনাভাইরাসের অন্য যে গোত্রগুলো রয়েছে, যার কারণে সাধারণ সর্দি-কাশির মতো রোগের প্রকোপ বেড়ে যায়, সেসব ঠাণ্ডা পড়লে বেড়ে যায় বলে দেখা গেছে।

করোনাভাইরাস আছে মোট চার রকমের -যা সাধারণ সর্দিজ্বরের লক্ষণ সৃষ্টি করে। প্রতিটিই সহজে ছড়ায় শীতের সময় । ইনফ্লুয়েঞ্জা, রাইনোভাইরাস, এবং আরএসভি নামে আরেকটি ভাইরাস – এর সবগুলোরই আচরণ মোটামুটি একই রকম।

কিন্তু গবেষক ও বিজ্ঞানীরা দেশভেদে এর বিভিন্ন রকমের চিত্র দেখতে পেয়েছেন।

বাংলাদেশের বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ রওশন আরা খানম বিবিসি বাংলাকে বলছেন, ”যদিও ভাইরাসের প্রকোপ কিছুটা কমে আসার পর এখন আবার বাড়তে শুরু করেছে, তবে ঠাণ্ডার সঙ্গে বা তাপমাত্রার সঙ্গে করোনাভাইরাসের বাড়া-কমার কোন সম্পর্ক আছে, সেটা আমরা এখনো পাইনি। করোনাভাইরাস বিশ্লেষণে সবকিছুই একেবারে নতুন ধরণের দেখা যাচ্ছে।”

তিনি উদাহরণ দিয়ে বলেন, বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের বিস্তার শুরু হয়েছে মার্চ মাসে, যখন এখানে শীতকাল শেষ হয়ে গেছে। সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত ও মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে মে, জুন, জুলাই মাসের দিকে, যখন বাংলাদেশে পুরো গরম থাকে।

প্রতিবেশী ভারতের ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে। ফলে করোনাভাইরাস বিস্তারে গরম আবহাওয়া কোন বাধা হয়ে দাঁড়ায়নি। গরম প্রধান অনেকে দেশেও ভাইরাসের বিস্তার ঘটতে দেখা গেছে। শীতপ্রধান দেশগুলোয় গ্রীষ্মের সময়েও করোনাভাইরাসের বিস্তার বন্ধ হয়নি।

”যেসব গবেষণা হয়েছে, সেখানে ঠাণ্ডার সঙ্গে এই ভাইরাসের বিশেষ সম্পর্ক আছে, ঠাণ্ডা বাড়লে ভাইরাসের বিস্তার বাড়বে, এমন কিছু এখনো পাওয়া যায়নি,” তিনি বলছেন।

ভাইরাসের সংমিশ্রণের ঝুঁকি

অনেক সময় দেখা যায়, সাধারণ সর্দিকাশির মতো অনেক রোগ শীতকালে বেড়ে যায়। যাদের নিউমোনিয়া বা বক্ষব্যাধি রয়েছে, তারাও এই সময়ে বেশি কাবু হয়ে পড়েন।

এসব উপসর্গের সঙ্গে করোনাভাইরাসের উপসর্গের অনেক মিল রয়েছে।

বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ রওশন আরা খানম বলছেন, লক্ষণগুলো অনেকটা একই রকম হওয়ায় আলাদা করার সুযোগ কম। ফলে কারো এ ধরণের লক্ষণ দেখা গেলেই সেটা করোনাভাইরাসের মতোই সতর্কতা ও ব্যবস্থা নিতে হবে।

এখানে একটি বড় চ্যালেঞ্জ হবে সাধারণ ফ্লু থেকে করোনাভাইরাসকে আলাদা করা। কারণ করোনাভাইরাস এবং সাধারণ ফ্লুর লক্ষণ অনেক সময় একই রকমের হয়ে থাকে।

বিজ্ঞানীদের কাছে এখন আরেকটি চিন্তার বিষয় হচ্ছে, করোনাভাইরাস, যা সার্স-কোভ-২ নামেও পরিচিত- এই ভাইরাসটি যদি অন্য ভাইরাসের সঙ্গে মিশে যেতে শুরু করে।

গবেষণায় দেখা গেছে, এক ধরণের ভাইরাসের সংক্রমণ অন্য ধরণের ভাইরাসের আক্রমণের জন্যও সুযোগ করে দেয়। তবে এক্ষেত্রে আশার কথা হলো, একটা ভাইরাসের আক্রমণে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হলে তা অন্য ভাইরাসের আক্রমণ ঠেকাতেও সহায়তা করবে। তবে একই সঙ্গে একাধিক ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে, এরকম উদাহরণ খুব কম।

”যেহেতু উপসর্গগুলো প্রায় একই রকম, তাই এখন যেকারো এখন সাধারণ সর্দি-কাশির উপসর্গ দেখা গেলে তার উচিৎ হবে, সঙ্গে সঙ্গে করোনাভাইরাস হয়েছে কিনা, সেটাও পরীক্ষা করা,” বলছেন ডা. রওশন আরা বেগম।

ভাইরাসের আক্রমণ থেকে সুরক্ষা

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সেক্ষেত্রে পরীক্ষার সংখ্যা যেমন বাড়াতে হবে, সর্দিকাশির লক্ষণ দেখা দেয়ার পর পরীক্ষা করানোর ব্যাপার মানুষজনকেও আগ্রহী হয়ে উঠতে হবে।

সেই সঙ্গে করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষা পেতে সামাজিক দূরত্ব রক্ষা করা, হাত ধোয়ার মতো যেসব সতর্কতা পালন করার কথা বলা হয়, সেগুলো সবাইকে কড়াকড়িভাবে পালন করতে হবে।

বাংলাদেশের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের পরিচালক ড. তাহমিনা শিরিন এর আগে বিবিসি বাংলাকে বলছেন, ”নিজেদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপর জোর দিতে হবে। হাত ধোয়া, হাঁচি কাশির সময় শিষ্টাচার রক্ষা করা ইত্যাদি যে বিষয়গুলো এতদিন ধরে বলা হচ্ছে, সেটাই আরও কড়াকড়িভাবে পালন করতে হবে।”

”সেই সঙ্গে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার বিষয়গুলোও অব্যাহত রাখতে হবে।”

বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪ লাখ ৩৮ হাজার ৭৯৫ জন। আর এই রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ২৭৫ জনের। বাংলাদেশে এখন গড়ে প্রতিদিন ১৬ হাজার পরীক্ষা করা হচ্ছে।

তবে বিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৫ কোটি ৫৬ লাখ ৭২ হাজারের বেশি মানুষ। সারা বিশ্বে মৃত্যু হয়েছে ১৩ লাখ ৩৯ হাজারের বেশি মানুষের।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য