ইরানের পারমাণবিক স্থাপনায় হামলা চালাতে চেয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার পর গত সপ্তাহে এ ব্যাপারে উদ্যোগী হয়েছিলেন তিনি। তবে শেষ পর্যন্ত জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টারা বিপজ্জনক এ কাজ থেকে তাকে বিরত রাখতে সমর্থ হন। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যম নিউ ইয়র্ক টাইমস। তবে এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত হোয়াইট হাউজের কোনও প্রতিক্রিয়া জানা যায়নি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ট্রাম্প মূলত ইরানের নাতাঞ্জ পরমাণু স্থাপনায় হামলা চালাতে চেয়েছিলেন। জাতিসংঘ গত সপ্তাহে জানিয়েছিল, ইরান ওই স্থাপনায় পরমাণু সমঝোতায় অনুমোদিত পরিমাণের চেয়ে ১২ গুণ বেশি ‘সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম’ মজুত করেছে।

পদস্থ মার্কিন কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে নিউ ইয়র্ক টাইমস জানায়, ইরানে হামলা চালালে কি পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে এ ব্যাপারে সামরিক ও নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের কাছে জানতে চেয়েছিলেন ট্রাম্প। তবে মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স, পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও, সেনাপ্রধান জেনারেল মাইক মিলি ও ভারপ্রাপ্ত প্রতিরক্ষামন্ত্রী ক্রিস্টোফার সি মিলার সবাই এ ব্যাপারে ট্রাম্পকে সতর্ক করে দেন।

ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ট্রাম্পকে বলেন, তিনি যেন এ ধরনের হামলার চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলেন। কারণ, ইরানের পরমাণু স্থাপনায় হামলা চালালে মধ্যপ্রাচ্যে বিশাল আকারে সামরিক সংঘাত শুরু হয়ে যেতে পারে। নিজের মেয়াদ শেষ হওয়ার মাত্র কয়েক সপ্তাহ আগে এমন সংঘাতে জড়ানো ঠিক হবে না।

কর্মকর্তারা ট্রাম্পকে বলেন, ইরানে হামলা চালালে উদ্ভূত পরিস্থিতি আর ওয়াশিংটনের নিয়ন্ত্রণে থাকবে না। সূত্র: নিউ ইয়র্ক টাইমস, পার্স টুডে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য