সংবাদ সম্মেলনঃ সেনাবাহিনী ও পুলিশে চাকুরীর দম্ভ এবং ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে দিনাজপুর চিরিরবন্দরের পল্লীতে নিরীহ ফজলুর রহমানের ক্রয়কৃত ৫ শতক সম্পাত্তিও দখলের চক্রান্ত করছে ভুমিদ:স্যু স্বজনরা।

১৫ নভেম্বর রবিবার সকালে দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখিত অভিযোগ করেছেন চিরিরবন্দরের ফকিরপাড়া গ্রামের মো: ফজলুর রহমান।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আমরা ৫ ভাই পৈত্রিক সম্পত্তি মৌখিক ভাবে বন্ঠন করে চাষাবাদের মাধ্যমে ভোগদখল করে আসছি। চিরিরবন্দর মৌজার জে এল নং ৬১ খতিয়ান ৪০৩,দাগ নং ৯০১ এর ভোগদখলীয় সম্পত্তির মধ্যে বর্ণিত ৫ শতক জমি আমি মো: জাবেদ বাবু‘র নিকট বিক্রয় করলে ভুমিদস্যুরা আমার ও জাবেদের বিরুদ্ধে চিরিরবন্দর থানায় অভিযোগ করে। এব্যাপারে স্থানীয়ভাবে এবং থানায় মিমাংসার জন্য শালিস বৈঠক হয় কিন্তু তারা মানেনি। এরজন্যে তারা আমাকে এবং মো: জাবেদ বাবুকে আসামী করে সিআরপিসি আদালত দিনাজপুরে ১১১/২০,তাং ২৬/০৭/২০ মামলা আনায়ন করে। পরবর্তীতে মো: জাবেদ বাবু বিবাদীদের বিরুদ্ধে বিজ্ঞ চিরিরবন্দর সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মামলা করেন। মামলা নং ৫৪/২০ তাং ২৩/০৯/২০। এরপরে সে বিবাদীদের বিরুদ্ধে অস্থায়ী নিষেধজ্ঞার আবেদন করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আমার আপন ভাতিজা সেনাবাহিনীর সদস্য মো: নুর আলম সরকার ও ভাতিজী মোছা: নাজমা আহম্মেদ ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে জমি দখলের পায়তারা করছে এবং তারা র‌্যাব-পুলিশ পাঠিয়ে আমাকে বিভিন্ন রকমের হুমকি-ধামকি ও ভয়ভীতি দেখছে । ওদের সঙ্গে একাজে আরো জড়িত রয়েছে মো: নুরনবী সরকার,মো: রকুনুজ্জামান,মোছা: আলম আরা পারভীন।

তারা পুলিশ ও সেনাবাহিনীতে চাকুরীররত থাকায় বিভিন্ন সময়ে র‌্যাব এবং পুলিশ পাঠিয়ে হয়রানী ও হুমকি-ধামকি প্রদান করায় আমি ১০৭/১১৭ধারা মোতাবেক পি ১৭৩/২০২০ তাং ২২/০৯/২০ মামলা করেছি। একারনে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে গত ১০ নভেম্বর সকাল ১০-১১টার মধ্যে মোছা: নাজমা আহম্মেদের মা র‌্যাবের পোশাক পরা অজ্ঞাতনামা ৩ জনকে নিয়ে আমার বাড়িতে এসে হুমকি-ধামকি দেখায়। সংবাদ সম্মেলনে তিনি প্রশাসনের কাছে সুবিচার প্রত্যাশা করেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাবু।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য