যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তার বহুদর্শী সহযোগী রন ক্লেইনকে হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফ হিসেবে বেছে নিয়েছেন বলে জানিয়েছে তার টিম।

ক্লেইন ১৯৮০-র দশক থেকে বাইডেনের সহযোগী হিসেবে কাজ করছেন; প্রথমে সেনেটের জুডিশিয়ারি কমিটিতে ও পরে বাইডেন ভাইস প্রেসিডেন্ট থাকার সময় তার চিফ অব স্টাফ হিসেবে।

বারাক ওবামার সময় হোয়াইট হাউসের জ্যেষ্ঠ সহযোগী ও আল গোর ভাইস প্রেসিডেন্ট থাকাকালে তার চিফ অব স্টাফও ছিলেন ক্লেইন, জানিয়েছে বিবিসি।

হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফ প্রেসিডেন্টের দৈনন্দিন কর্মসূচী ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করেন যাকে প্রায়ই তার দ্বাররক্ষক হিসেবে বর্ণনা করা হয়। রাজনৈতিক এই নিয়োগের ক্ষেত্রে সেনেটের অনুমোদন লাগে না।

তার ট্রানজিশন টিমের প্রকাশ করা এক বিবৃতিতে বাইডেন ক্লেইনের প্রশংসা করেছেন।

বাইডেন বলেছেন, “আমরা যখন এই সংকট মূহুর্ত ও আমাদের দেশকে ফের ঐক্যবদ্ধ করার বিষয়টির মোকাবেলা করছি তখন হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফ হিসেবে আমার দরকার তার গভীর, বিচিত্র অভিজ্ঞতা ও রাজনৈতিক পরিসরের সব ধরনের লোকের সঙ্গে কাজ করার ক্ষমতা।”

নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট তার ওপর আস্থা রাখায় তিনি ‘গর্বিত’ বলে ক্লেইন এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন।

১৯৮৯-৯২ সালে বাইডেন সেনেটের জুডিশিয়ারি কমিটির চেয়ারম্যান থাকাকালে ক্লেইন কমিটির চিফ কাউন্সেল হিসেবে কাজ করেছেন। ১৯৮৮ ও ২০০৮ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনেও বাইডেন প্রার্থী হওয়ার চেষ্টা করেছিলেন, অসফল ওই প্রচেষ্টার সময় তার উপদেষ্টা ও বক্তৃতালেখক হিসেবে কাজ করেছিলেন ক্লেইন।

ওবামা হোয়াইট হাউসে থাকাকালে ভাইস প্রেসিডেন্ট বাইডেনের চিফ অব স্টাফ হিসেবে ২০০৯-১১ পর্যন্ত দায়িত্বপালন করেছেন ক্লেইন।

পরে ২০১৪ সালে প্রাণঘাতী রোগ ইবোলার সামান্য প্রাদুর্ভাব দেখা দিলে ওবামার অধীনে ‘ইবোলা জার’ হিসেবে কাজ করেন তিনি।

ডেমোক্র্যাট দলীয় এই কর্মী বিল ক্লিনটনের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারের সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন। ২০০৪ সালের নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী জন কেরির একজন উপদেষ্টা হিসেবেও কাজ করেছেন তিনি। ক্লিনটন, গোর, কেরি, হিলারি ক্লিনটন ও বাইডেনের প্রেসিডেন্সিয়াল বিতর্ক দলের একজন হয়েও কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে ক্লেইনের।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য