সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছে ২৩৪০ কোটি ডলারের অস্ত্র বিক্রির অনুমোদন দিয়েছে আমেরিকার বিদায়ী ট্রাম্প প্রশাসন। কম্ব্যাট ড্রোন সহ এর মধ্যে রয়ছে কয়েক ডজন এফ-৩৫ জঙ্গিবিমান।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছে ট্রাম্প প্রশাসন ইতিমধ্যেই এই বিপুল অর্থের অস্ত্র বিক্রির জন্য কংগ্রেসকে আনুষ্ঠানিকভাবে নোটিশ দিয়েছে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) এ অস্ত্র বিক্রির ঘোষণা দেন। মার্কিন কংগ্রেস অনেক আগে থেকেই মধ্যপ্রাচ্যে ইসরাইলের সামরিক আধিপত্য বজায় রাখার নীতি অনুসরণ করে আসছে। এখন দেখার বিষয় হচ্ছে ট্রাম্প প্রশাসনের এই অস্ত্র বিক্রির পরিকল্পনাকে কংগ্রেস অনুমোদন দেয় কি না।

সম্প্রতি ইহুদিবাদী ইসরাইল এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত তাদের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক স্বাভাবিক করার চুক্তি করেছে। এর পরপরই আমেরিকা সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র বিক্রির পরিকল্পনা হাতে নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। সংযুক্ত আরব আমিরাত দীর্ঘদিন ধরে এফ-৩৫ জঙ্গিবিমান বিক্রির জন্য আমেরিকার কাছে অনুরোধ জানিয়ে আসছে।

মাইক পম্পেও গতকাল বলেছেন, ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের পক্ষ থেকে সৃষ্ট হুমকি মোকাবেলায় এবং নিজেকে রক্ষার জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাতের উন্নত অস্ত্র ও সামরিক সরঞ্জামাদি প্রয়োজন রয়েছে। সে প্রয়োজন মেটানোর জন্যই যুক্তরাষ্ট্র এই অস্ত্র বিক্রির পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছে এসব অস্ত্র বিক্রি করলে ইরানের পক্ষ থেকে সব ধরনের হুমকি এবং চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করা সম্ভব হবে বলে মন্তব্য করেন মাইক পম্পেও।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছে এই ড্রোন বিক্রি না করতে আমেরিকার প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। মানবাধিকার সংস্থাটি বলছে, ইয়েমেন এবং লিবিয়া যুদ্ধে সংযুক্ত আরব আমিরাত জড়িত হয়ে দেশ দুটিতে বেসামরিক জনগণ হত্যা করেছে এবং এ ব্যাপারে অ্যামনেস্টির কাছে পর্যাপ্ত তথ্য-প্রমাণ রয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য