রংপুরে সনামধন্য মুসলিম পরিবারের জন্ম গ্রহন করেছিলেন আবু ইউনুস শহীদুন্নবী জুয়েল তাকে গত ২৯শে অক্টোবর বিকালে লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারির কেন্দ্রিয় জামে মসজিদে আসরের নামাজ শেষে কোরাআন অবমাননার গুজব ছড়িয়ে জুয়েলকে ইটপাটকেল, মার ডাং করে হত্যা করার পর তার মরদেহটিকে নির্মমভাবে পুড়িয়ে ফেলার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও স্মারক লিপি প্রদান করে সাবেক ও বর্তমান ছাত্রনেতারা।

মঙ্গলবার সকালে রংপুর প্রেস ক্লাবের সামনে কারমাইকেল কলেজ সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা বিশাল মানববন্ধনের আয়োজন করে। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন জুয়েলকে নৃশ্ংসভাবে হত্যা করেছে তা জাহেলিয়া যুগকে হার মানিয়েছে।

এই নৃশংস হত্যা ও পুড়িয়ে ফেলার প্রতিবাদ জানিয়ে ওই এলাকার হত্যাকারীদেরকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি জানান। মানববন্ধন শেষে রংপুর বিভাগীয় কমিশনার আবদুল ওহাব ভুঞাকে ও বাংলাদেশ পুলিশ রংপুর রেঞ্জ ডিআইজি দেবদাস ভট্রাচায্যকে স্মারক লিপি প্রদান করা হয়।

বিশাল মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন কারমাইকেল কলেজের সাবেক ছাত্রনেতা অ্যাডভোকেট জোবাইদুল ইসলাম বুলেট ও সাবেক ছাত্রনেতা মোঃ রশিদুস সুলতান বাবলুর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন কারমাইকেল কলেজের সাবেক ভিপি আলাউদ্দিন মিয়া, ঘাতক দালাল নির্মুল কমিটির জেলা সভাপতি ডাঃ মফিজুল ইসলাম মন্টু, কারমাইকেল কলেজ সাবেক জিএস শহিদুল ইসলাম মিজু ,হিন্দু বোদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি বনমালী পাল, চায়না চৌধুরি, সাবেক ছাত্রনেতা কমরেড আবদুল কুদ্দস, সেলিম চৌধুরি, আবদুস সালাম, মির্জা বাবর বাবলু, সুব্রত সরকার মুকুল, শাহানেওয়াজ রহমান লাবু, বিশিষ্ট সংগঠক ও সমাজকর্মী আলহাজ্ব তানবির হোসেন আশরাফী, এম এম আলম পান্না, নুর হাসান সুমন, জাকারিয়া হোসেন জিম প্রমুখ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য