দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের বিরলে স্কুলছাত্রী ও গৃহবধুকে ধর্ষণের ঘটনায় পৃথক দুটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে। এর মধ্যে একটি বিয়ের প্রলোভনে প্রেমিক কর্তৃক এক স্কুল ছাত্রী ও অপরটি গরুর ঘাষ কাটতে গিয়ে আওয়ামীলীগ নেতা কর্তৃক এক দিনমুজুরের স্ত্রী ধর্ষনের শিকার হয়েছেন।

ধর্ষণ ঘটনা দু’টিতে পৃথক পৃথক ভাবে থানায় এজাহার দাখিল করা হলেও দিনমুজুরের স্ত্রী ধর্ষণের অভিযোগটি রজু করা হয়েছে। তবে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের ঘটনার অভিযোগটি এখনও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বিরল থানার ওসি শেখ নাসিম হাবিব।

বিরল থানা ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বিরল উপজেলার শহরগ্রাম ইউনিয়নের নরশিংপাড়ার কেরাম উদ্দীনের ছেলে সাগর (২০) বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে অষ্টম শ্রেনীর একস্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ করে। এঘটনায় গত ২ নভেম্বর সোমবার রাতে ওই শিক্ষার্থীর অভিভাবক বাদী হয়ে বিরল থানায় একটি এজাহার দাখিল করে। অপরদিকে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার পলাশবাড়ী ইউনিয়নের এক দিনমুজুরের স্ত্রী গরুর ঘাস কাটতে বাড়ির পাশের ধানক্ষেতে গেলে ইভিরামপুর (বাহইল) গ্রামের মৃত: রুস্তম আলীর পুত্র ও ৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি একরামুল হক (৪০) ওই গৃহবধূকে তাঁর ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় সোমবার রাতে ভিকটিম নিজে বাদি হয়ে ধর্ষক একরামুল হককে আসামী করে বিরল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

এ বিষয়ে বিরল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ নাসিম হাবিব বলেন, দিনমুজুরের স্ত্রী ধর্ষণের ঘটনার অভিযোগটি মঙ্গলবার বিকেলে মামলা হিসেবে রুজু করা হয়েছে। তবে স্কুল ছাত্রী ধর্ষনের ঘটনাটি এখনও তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তের ভিত্তিতে বিষয়টিতে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানান তিনি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য