দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে জাতীয় উদ্যানের ভিতরে আশুড়ার বিলের পূর্ব প্রান্তে বাঁধ নির্মাণ প্রকল্প বন্ধের দাবীতে বাঁধের উপরে এলাকাবাসী ২ দিন ধরে শান্তি পূর্ণ অনশন করে আসছেন। খোলা জায়গায় কাপড়ের তাবু টাঙ্গিয়ে তার নিচে শত শত নারী-পূরুষ সহ শিশুরা বসে ওই অনশন শুরু করেছেন।আশুড়ার বিলের ভ’ক্তভোগী ধান চাষীগণের ব্যানারে ওই গণ অনশন করা হচ্ছে।

আশুড়ার বিলের ১৯ শত হেক্টর আবাদি জমির ফসল উৎপাদন বন্ধ করে জাতীয় উদ্যানের জন্য বাঁধ নির্মাণ প্রকল্প বন্ধ করার দাবীতে প্রায় ৩০ হাজার পরিবারের জীবন জীবিকার নিমিত্তে উপজেলার গোলাপগঞ্জ ইউনিয়নের হরিপুর এলাকা সহ বিরামপুর উপজেলার খাঁনপুর এলাকার ধান চাষীগণ ওই অনশন শুরু করেছেন।

সোমবার ঘটনাস্থলে গেলে হরিপুর বাসটেক এলাকার মৃত সিরাজ আলীর ছেলে আসাদুল হক(৫০) ও আঃ হানিফের ছেলে মোসলেম উদ্দীন (২৮) এবং বিরামপুর উপজেলার খানপুর ইউনিয়নের লটকুমারী গ্রামের মৃত পাষানের ছেলে বাদশা মিয়া(৫৫) জানান আশুড়ার বিলের বাঁধ দেয়ার কারনে তারা ফসল চাষ করতে পারছেন না।

ফলে পরিবার পরিজন নিয়ে তারা অতি কষ্টে দিনাতিপাত করে আসছেন। তারা এ বিষয়ে আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন। বিষয়টি নিয়ে নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ নাজমুন নাহারের সাথে যোগাযোগ করা তিনি জানান অনশনকারীগণ তাদের যে জায়গা দাবী করছেন সে জায়গা সরকারী সম্পদ। তাদের কোন কাগজ নাই। তাদের যদি কোন কাগজ থাকে তা তারা দেখাতে পারেন। সে ব্যাপারে তো কেউ তার সাথে যোগাযোগ করছেন না।

তাছাড়া আদালতে তারা যে মামলা দায়ের করেছেন তার জবাবও দেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান। উল্লেখ্য গত শুক্রবার বিকালে বাঁধের কিছু ভাঙ্গা অংশ ঠিক করে দিতে সরকারের পক্ষে ভেকু মেশিন নিয়ে যাওয়া হলে ওই কাজে এলাকাবাসী বাধা দেন এবং ভেকু মেশিন ফিরিয়ে দেন।

জানা যায় দিনাজপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে ১৮ লক্ষ্যাধিক টাকা ব্যয়ে আশুড়ার বিলে ওই ক্রসড্যামটি নির্মান করেন এবং এর দুধারে মাটি দিয়ে বাঁধ নির্মান করেন।

চলতি বছরের জানুয়ারী মাসেও ওই বাঁধের ভাঙ্গা অংশে মাটি ভরাট করতে গিয়ে প্রশাসণ বাধা গ্রস্থ হয়েছিলেন। এ ব্যাপারে বি এ ডিসির পক্ষে একটি মামলাও দায়ের করা হয়েছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য