করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর সৌদি আরবের নাগরিক ও দেশটিতে বসবাসকারী বিদেশিদের মসজিদুল হারামে নামাজ পড়ার অনুমতি দিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।

সাত মাসের মধ্যে এমন অনুমতি এই প্রথম বলে দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিভিশন রোববার সকালে জানিয়েছে।

করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে মার্চ থেকে মসজিদটিতে সীমিত পরিসরে নামাজ আদায় চললেও জামাত বন্ধ আছে। এতদিন সাধারণ মুসল্লিদের মসজিদে প্রবেশ করার অনুমতি ছিল না। শুধু ইমাম, মুয়াজ্জিনসহ মসজিদের কর্মচারীরা সেখানে নামাজ আদায় করতে পারতেন।

১৭ মার্চ এক ঘোষণায়, মক্কা ও মদিনার প্রধান দুই মসজিদ ছাড়া সৌদি আরবের বাকি সব মসজিদে জামাতে নামাজ স্থগিত করে নির্দেশ জারি করে দেশটির কর্তৃপক্ষ। পরে এ দুটি মসজিদেও জামাতে নামাজ আদায় বন্ধ করা হয়।

৪ অক্টোবর প্রথম ওমরাহযাত্রীদের জন্য মসজিদুল হারামের দুয়ার খুলে দেওয়া হয়।

তখন সৌদি সরকার জানিয়েছিল, তিনটি ধাপে ওমরাহ কার্যক্রম চালুর পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। প্রথম ধাপে শুধু সৌদি আরবে অবস্থানরতরাই সুযোগ পাবেন।

এমনিতে আগে দৈনিক ২০ হাজার জনকে ওমরাহ করার অনুমতি দেওয়া হলেও তখন এর ৩০ শতাংশ, অর্থাৎ এক দিনে ছয় হাজার জনকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ওমরাহ করার অনুমতি দেওয়া হয়।

দ্বিতীয় ধাপে ১৮ অক্টোবর, রোববার থেকে তা বাড়িয়ে একদিনে সর্বোচ্চ ১৫ হাজার জনকে ওমরাহর জন্য মসজিদুল হারামে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে।

তৃতীয় ধাপে ১ নভেম্বর থেকে সৌদি আরবে অবস্থান করা এবং বিদেশ থেকে আসা ওমরাহযাত্রীদের মক্কার মসজিদুল হারামে ঢুকতে দেওয়া হবে। তখন প্রতিদিন ২০ হাজার মানুষ ওমরাহ করার সুযোগ পাবেন।

সৌদি আরবে রোববার পর্যন্ত ৩ লাখ ৪১ হাজার ৮৫৪ জনের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে, মৃত্যু হয়েছে ৫ হাজার ১৬৫ জনের।

ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সাধারণ মুসুল্লি ও ওমরাহযাত্রীদের ক্ষেত্রেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে কঠোরভাবে। মসজিদুল হারামের প্রবেশ পথে এবং ভেতরে বিভিন্ন স্থানে বসানো হয়েছে থার্মাল ক্যামেরা, যাতে নিয়মিত তাপমাত্রা পর্যবেক্ষণ করে প্রয়োজনে জরুরি সতর্কতা জারি করা যায়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য