মোঃ ইউসুফ আলী, আটোয়ারী(পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে কৃষকের আমন রোপা অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়েছে। কৃষি বিভাগ রোগ সনাক্ত করতে না পারায় অবশেষে আমন রোপা গোখাদ্য হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে।

জানাগেছে, উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের রাধানগর গ্রামের আদর্শ কৃষক মোঃ হবিবর রহমান মাস্টারের এক একর জমিতে এ অজ্ঞাত রোগের আবির্ভাব ঘটেছে।

কৃষক হবিবর রহমান মাস্টার জানান, যমুনা ৮০৪ জাতের ধান বীজ ক্রয় করে বীজতলা তৈরী করে তিন একর জমিতে রোপন করা হয়েছে। একই প্যাকেটের বীজ তিন একর জমিতে রোপন করা হলেও এক একর জমিতে রোপা চারা গাছে ধানের উৎপত্তি হচ্ছেনা।

একই ধানের বীজের চারা একই সময়ে তিন একর জমিতে লাগানো হলো কিন্তু এক একর জমিতে ধান হলো না। একই বীজের চারা অন্য জমিতে ধান বের হয়েছে। তিনি বলেন, এব্যাপারে উপজেলা কৃষি বিভাগে যোগাযোগ করা হয়েছে। কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাগণ সরেজমিনে এসে দেখে কোন সমাধান দিতে পারেন নি।

এব্যাপারে উপজেলা অতিরিক্ত কৃষি কর্মকর্তা নুরজাহান খাতুন বলেন, আমি নিজেই আক্রান্ত রোপা ক্ষেতে গিয়ে দেখেছি। রোপা ক্ষেতে এ রোগের নতুন আবির্ভাব হয়েছে। জমিনের সমস্যার কারণে এ রোগ হতে পারে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।

উপজেলা কৃষি অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ওই কৃষককে অজ্ঞাত রোগে আমন রোপা নষ্ট হওয়া জমির মাটি পরীক্ষা করার পরামর্শ দিয়েছি।

তিনি বলেন, উপজেলা কৃষি বিভাগ আন্তরিকতার সাথে কৃষকদের সেবা দিয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে আমন রোপা ক্ষেতে কারেন্ট পোকা সহ বিভিন্ন পোকার আক্রমন রোধে উঠান বৈঠক, সান্ধকালীন পোকা রোগের উপর ভিডিও প্রদর্শন, আলোক ফাঁদ দিয়ে পোকার উপস্থিতি সনাক্ত করন, মাঠ পরিদর্শন সহ লিফলেট বিতরণ অব্যাহত রয়েছে।

কৃষক হবিবর রহমান মাস্টার বলেন, রোপা থেকে ধান বের হওয়ার কোন সম্ভাবনা না থাকায় এক একর জমির রোপা গোখাদ্য হিসেবে বিশ হাজার টাকায় বিক্রি করে দিয়েছি। এতে আমার প্রায় ষাট হাজার টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য