কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে দুই সন্তানের জননী এক গৃহবধূ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটে উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের পূর্বধনীরাম গ্রামে। বুধবার সন্ধ্যায় ওই গৃহবধূ বাদী হয়ে ফুলবাড়ী থানায় একটি নারী-শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেছেন।

নির্যাতিত গৃহবধূ জানান, কাজের প্রয়োজনে তার স্বামী দীর্ঘদিন থেকে বাড়ি ছেড়ে কুমিল্লাসহ দূরের জেলায় অবস্থান করছেন। স্বামী বাড়িতে না থাকার সুযোগে একই গ্রামের জাহেদুল ইসলাম নোকাপের বখাটে ছেলে আতাউর রহমান (২৪) প্রায় সময় মোবাইল ফোনে কুরুচিপূর্ণ কথা বলতো এবং অনৈতিক কাজের প্রস্তাব দিত। গত দুই সপ্তাহ থেকে অনৈতিক কাজের প্রস্তাবের মাত্রা আরও বেশী হয়।

তার অনৈতিক কাজের প্রস্তাবে রাজি ছিলেন না তিনি। পরে গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১২ টার দিকে আতাউর রহমান কৌশলে দরজা খুলে ওই গৃহবধূর ঘরে প্রবেশ করে তার উপর নির্যাতন চালায়। তার আর্তচিৎকার শুনে তার শ্বাশুড়ী ধর্ষক আতাউরকে আটকের চেষ্টা করেন। এ সময় বৃদ্ধা শাশুড়িকেও মারপিট করে পালিয়ে যায় ধর্ষক আতাউর।

গৃহবধূ আরও জানান, আতাউরের মারপিটে তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্নের সৃষ্টি হয়েছে। মারপিটের সময় তার নাকের ফুল ভেঙে ফেলে ধর্ষক আতাউর। ঘটনার সময় আতাউরকে ধর্মের ভাই বলে ডেকে রেহাই পাননি তিনি।

তার উপর পাশবিক নির্যতনকারী আতাউরের সঠিক বিচার চান তিনি। ধর্ষক আতাউর রহমানের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী করেছে এলাকাবাসী। বড়ভিটা ইউনিয়নের পূর্বধনীরাম ২ নং ওয়ার্ডের মেম্বার উজির আলী এ ঘটনার নিন্দা জ্ঞাপন করে জানান , অভিযুক্ত ব্যক্তির উপযুক্ত বিচার চান তিনি।

ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রাজীব কুমার রায় জানান, থানায় একটি নারী-শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের হয়েছে। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। বৃহস্পতিবার সকালে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য