অবশেষে কিরগিজস্তানের প্রেসিডেন্ট সুরুনবায় জিনবেকভ পদত্যাগ করেছেন। এর মধ্যদিয়ে দেশটিতে এক সপ্তাহর বেশি সময় ধরে চলা সংকটের অবসান হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সরকার বিরোধীরা প্রথম থেকেই প্রেসিডেন্ট জিনবেকভের পদত্যাগ দাবি করে আসছেন।

প্রেসিডেন্টের কার্যালয় প্রকাশিত এক বিবৃতিতে জিনবেকভ বলেছেন, আমি ক্ষমতা আঁকড়ে থাকতে চাই না। আমি চাই না নিজ দেশের জনগণকে রক্ষপাত ও গুলির অনুমতি দেওয়া প্রেসিডেন্ট হিসেবে ইতিহাসে স্থান পেতে।

তিনি দাবি করেছেন, ক্ষমতায় আঁকড়ে থাকা আমাদের দেশের অখণ্ডতার চেয়ে মূল্যবান নয় এবং সামাজিক নীতির মধ্যে পড়ে না। আমার জন্য, কিরগিজস্তানের শান্তি, দেশের অখণ্ডতা, জনগণের ঐক্য ও সমাজে স্থিতিশীলতা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

এর আগে পদত্যাগ করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রিসভা এবং বেশ কয়েকজন গভর্নর ও মেয়র। এতে রাজনৈতিক শূন্যতা তৈরি হয়েছে। গত শুক্রবার থেকে দেশে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়। রাজধানী বিশকেকে মোতায়েন করা হয় সেনাবাহিনী।

নির্বাচন ঘিরে সৃষ্ট সংকটের মধ্যে গত সপ্তাহে বিরোধীরা দেশটির কয়েকটি সরকারি ভবন দখল করার পর থেকেই দ্রুত রাজনৈতিক পরিস্থিতির পরিবর্তন ঘটতে থাকে সেখানে। চলমান বিক্ষোভে অন্তত একজন নিহত ও শতাধিক আহত হয়েছেন। -পার্সটুডে

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য