দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের বীরগঞ্জ পৌরশহরে অনিয়ন্ত্রিত ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, পাগলু ও ইজিবাইক যেন পৌরবাসীর গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

শহরে দুই -তিনটি বাহনে যাতায়াতের সুবিধা পেলেও প্রতিদিনের যানজট যন্ত্রণা দায়ক হয়ে পড়েছে। দিন দিন বেড়েই চলেছে নাগরিক দুর্ভোগ।

পাশাপাশি মহাসড়ক দখল করে রেখেছে অবৈধ যান নছিমন, করিমন ও ট্রাক্টর ট্রলি । এই অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে চায় পৌরবাসী।

একদিকে যেমন যানজট অন্যদিকে রয়েছে ফুটপাত দখল। পৌরশহরের প্রধান প্রধান সড়কের ফুটপাত ও মাষ্টার ড্রেন দখল করে ভ্রাম্যমাণ কিংবা স্থায়ী দোকান বসিয়ে ব্যবসা চালাচ্ছেন বিভিন্ন প্রকারের ব্যবসায়ীরা।

মাঝে মধ্যে উচ্ছেদ অভিযান চললেও অভিযান শেষে আবারো অবৈধভাবে বসানো হয় দোকান-পাট। ফুটপাত দখলের কারণে পথচারীরা ঠিকমতো চলাচল করতে পারছেন না।

করোনাকালেও প্রতিদিন পৌর শহরে যানজটের এই অবস্থা দেখলে মনে হবে দেখার কেউ নেই। বীরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের একপ্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে স্বল্প ভাড়ায় দ্রুত যাতায়াতের সুবিধার কারণে বীরগঞ্জ পৌর শহরে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, পাগলু ও ইজিবাইক ব্যবহার করেন। কিন্তু এসব বাহনের চালকরা মহাসড়কে নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে চলাচল করছে।

ফলে শহরে প্রতিনিয়ত সৃষ্টি হয় সীমাহীন যানজট। আর প্রতিদিনের যানজটের দুর্ভোগ এখন পৌরবাসীর নিত্যসঙ্গী। রাস্তা পার হওয়ার জন্য মানুষ অনেক সময় ধরে দাঁড়িয়ে থাকেন।

হেমন্ত রায় দাঁড়িয়ে বলেন, রাস্তা পার হব বলে পাঁচ মিনিট থেকে দাঁড়িয়ে আছি, কিন্তু বেপরোয়া অটোরিকশার কারণে পার হতে পারছি না। আর ফুটপাত দখল করে বসে আছে খুদে ব্যবসায়ীরা,সেদিক দিয়েও যাওয়া কঠিন।

পৌরশহরের বিজয় চত্বর থেকে তাজ মহল মোড়, কাহারোল মোড় পর্যন্ত প্রায় সময় এই সড়কে দেখা মিলবে তিন চাকার অটোগুলোর সারিবদ্ধভাবে রাস্তা দখল করে যাত্রী ওঠা-নামার দৃশ্য। এতে বাস-ট্রাকসহ অন্য যানবাহন চলাচল বিঘ্নত হয়।

এসব গাড়ির চালকরা জানান, ছোট গাড়ির কারণে অসুবিধায় পড়তে হয় তাদের। যাত্রী ওঠা-নামার সময় তারা রাস্তা দখল করে নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে। এবং তিন চাকার অধিকাংশ অটোগুলো রাস্তার মাঝ স্থান দিয়ে চলে। না বুঝে সিগন্যাল, না বোঝে ডান-বাম। আর এ কারণে প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে সড়ক দুর্ঘটনা।

এব্যাপারে বীরগঞ্জ পৌরসভার সচেতন মহল বলছেন, উপজেলা প্রশাসন দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করলে যানজট এবং প্রানহানী থেকে রেহাই পাবেন বীরগঞ্জ পৌরবাসী।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য