মাঝ আকাশে ফ্রান্সের দুইটি ছোট বিমানের সংঘর্ষের ঘটনায় অন্তত পাঁচজন নিহত হয়েছে। স্থানীয় সময় শনিবার (১০ অক্টোবর) বিকাল সাড়ে চারটার দিকে সংঘর্ষের পর টুরস শহরের দক্ষিণ-পূর্বের এলাকায় বিমানগুলো বিধ্বস্ত হয়। স্থানীয় কর্মকর্তাদের উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এ তথ্য জানিয়েছে।

বিধ্বস্ত হওয়া বিমান দুইটির একটি মাইক্রোলাইট এয়ারক্রাফট। হালকা ধরনের এ বিমানটিতে মাত্র দুইজন যাত্রী ছিলেন। ডিএ ৪০ নামে অপর যে বিমানটি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে তাতে ছিলেন তিন জন আরোহী। এটি একটি পর্যটক বিমান। সংঘর্ষের জেরে দু’টি বিমানে আগুন ধরে যায়।

ফায়ার সার্ভিসের ৫০ জন কর্মী দ্রুত ঘটনাস্থল ঘিরে ফেলে। দুই বিমানের আগুন নেভাতে সক্ষম হন তারা। তবে বিমান আরোহীদের কাউকে বাঁচানো যায়নি।

বিমানগুলো কীভাবে মাঝআকাশে মুখোমুখি চলে এল, বিমান দুর্ঘটনার কারণই বা কী, সে বিষয়ে বিস্তারিত জানা যায়নি। লচেস পুলিশ বিমানদুর্ঘটনার কারণ খতিয়ে দেখছে।

এর আগে ২০১৫ সালের মার্চে ফ্রান্সে যাত্রীবাহী বিমান ভেঙে পড়ে ১৪৮ জনের মৃত্যু হয়। জার্মান এয়ারলাইনসের এয়ারবাস এ-৩২০ বিমানটি স্পেনের বার্সেলোনা থেকে জার্মানির ড্যুসেলডর্ফের উদ্দেশে রওনা দিয়েছিল। বিমানে ১৪২ জন যাত্রী ছাড়াও দুই পাইলট ও ছয়জন ক্রু ছিলেন। মাঝপথে দক্ষিণপূর্ব ফ্রান্সের বার্সেলোনেট্টে এলাকায় একটি স্কি রিসর্টের কাছাকাছি ভেঙে পড়েছিল বিমানটি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য