দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুর হাজি দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (হাবিপ্রবি)র ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনে অভিযোগ করায় রূপালী ব্যাংকের ম্যানেজার পবিত্র কুমার কুন্ডুকে আটক করে কৈফিয়ত দাবি করার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ ওই ব্যাংকের ম্যানেজারকে আটক করে কৈফিয়ত চেয়ে সেই ভিডিও ফেইসবুকে লাইভ করেছেন।

শুক্রবার রাত ৯ টা ২৯ মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মোরশেদুল আলম রনী ও রিয়াদ খানের ফেসবুক থেকে এই ভিডিওটি লাইভ করা হয়েছে। এরপর সকাল থেকেই ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে পড়েছে। ভিডিওর কথা শুনে জানা গেছে যে, রুপালী ব্যাংকের শাখা টিএসসিতে স্থানান্তর করতে না দেয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনে অভিযোগ করেছিলেন ম্যানেজার। ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা লাইভ ভিডিওটিতে বারবার জানতে চেয়েছেন যে কেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে প্রশাসনে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তবে ওই ভিডিওটিতে কোন সদুত্তর দিতে পারেননি ওই ব্যাংকের ম্যানেজার।

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে শুক্রবার বিকেলে ক্যাম্পাস থেকে টিএসসিতে রুপালী ব্যাংকের শাখা স্থানান্তর করা শুরু করে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। এ সময় সেখানে ব্যাংকের শাখা স্থানান্তর করা যাবে না এবং সাধারন শিক্ষার্থীদের এ বিষয়ে আপত্তি আছে বলে বাধা দেয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

তারা বিষয়টি প্রশাসনের সাথে আলোচনা করে শাখা স্থানান্তর করার জন্য বলে। কিন্তু ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠান হওয়ায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনে অভিযোগ করেন ব্যাংকের ম্যানেজার। অভিযোগ করার বিষয়টি জানতে পেরে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা রাত সাড়ে ৯ টার দিকে ম্যানেজারকে ব্যাংকের ভিতরে প্রবেশ করে তার কাছে অভিযোগ করার বিষয়ে কৈফিয়ত চায়। এ সময় ঘটনাটি ফেসবুকে লাইভ করা হয়।

এ ব্যাপারে ঘটনার সময় উপস্থিত থাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতা রিয়াদ খানের সাথে শনিবার বিকেলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, টিএসসিতে ব্যাংকের শাখা স্থানান্তর করার বিষয়ে আপত্তি আছে সাধারন শিক্ষার্থীদের। কিন্তু ব্যাংক কর্তৃপক্ষ করোনাকালের সুযোগ নিয়ে শাখাটি টিএসসিতে স্থানান্তর করছিল।

এটি জানতে পেরে আমরা শুধু আপাতত ব্যাংকের শাখা টিএসসিতে স্থানান্তর না করার জন্য বলেছি এবং এ বিষয়ে প্রশাসনের সাথে আলোচনার জন্য বলেছি। কিন্তু ম্যানেজার আমাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনে লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করেছেন। পরে অবশ্য তিনি সেই অভিযোগটি উত্তোলন করে নিয়েছেন। এখানে আমাদের কোন স্বার্থ নেই, সাধারন শিক্ষার্থীদের পক্ষেই আমরা কথা বলতে গিয়েছিলাম। আর ফেসবুক লাইভে শুধু আমরা আমাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করার বিষয়টি জানতে গিয়েছিলাম।

এ ব্যাপারে শনিবার বিকেলে রূপালী ব্যাংকের ডিজিএম আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমরা নিজেদের মধ্যে মিটিং করছি। সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের সাথে ও ব্যাংকের জিএম স্যারের সাথে মিটিং আছে। আমরা এ ব্যাপারে কি পদক্ষেপ গ্রহণ করব মিটিং এর পরে জানা যাবে, তখন আপনাদেরকে বিষয়টি জানানো হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য