মোঃ জাকির হোসেন, (নীলফামারী) সংবাদদাতাঃ করোনাকালে সাংবাদিকদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দেয়া অনুদানের টাকা থেকে সৈয়দপুর উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিকরা বঞ্চিত হওয়ায় মানববন্ধন করেছে।২২ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার দুপুরে স্থানীয় প্রেসক্লাবের সামনে ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধন চলে। এতে উপজেলায় কর্মরত বিভিন্ন পত্রিকার সাংবাদিকরা অংশ নেন।

এই প্রতিবাদ কর্মসূচিতে একাত্মতা প্রকাশ করে সৈয়দপুর রিপোর্টার্স ইউনিটি, বাংলাদেশ প্রেসক্লাব, রিপোর্টার্স ক্লাব ও মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম। মানববন্ধন শেষে প্রেসক্লাবের একটি প্রতিনিধি দল সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের চেয়ারম্যান বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেন।

উল্লেখ্য, গত ১৭ সেপ্টেম্বর নীলফামারী শিল্পকলা একাডেমি ভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে ৭১ জন সংবাদকর্মীকে প্রধানমন্ত্রীর তহবিল থেকে ১০ হাজার টাকা করে অনুদান প্রদান করেন রেলপথমন্ত্রী এ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজন। এসময় দেখা যায় অনুদানপ্রাপ্তদের অধিকাংশরাই অসাংবাদিক। এ কারনে তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ জানিয়ে প্রকৃত সংবাদকর্মীদের এ অনুদান প্রদানের দাবী জানান দৈনিক মানব জমিনের জেলা প্রতিনিধি দীপক।

এতে প্রকাশ হয়ে পড়ে সাংবাদিকদের তালিকা প্রনয়ন নিয়ে ঘাপলা তথা অনিয়মের চিত্র। দেখা যায় নীলফামারী সদর উপজেলারই ৬১ জনকে এবং জেলার অন্য ৫টি উপজেলা থেকে মাত্র আর ১০ জনকে তালিকাভুক্ত করা হলেও সৈয়দপুর উপজেলা থেকে কোন সংবাদকর্মীকে সেই তালিকায় স্থান দেয়া হয়নি। অথচ সৈয়দপুর নীলফামারী জেলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শহর। এখানকার সংবাদকর্মীরা সবসময়েই পেশাগত দায়িত্ব পালনে অত্যন্ত তৎপর ও দায়িত্বশীল।

করোনাকালে এক্ষেত্রে তারা ছিলো আরও বেশি সক্রিয়। ফলে এ নিয়ে শুরু হয় চরম সমালোচনা। সোস্যাল মিডিয়া থেকে শুরু করে সর্বত্র ভাইরাল হয়ে পড়ে সমাজের বিবেক হিসেবে পরিচিত সংবাদেরকর্মীদের নিয়ে সংবাদপত্র জগতের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তি ও প্রশাসনের নোংরামির ঘটনা। যা সর্বস্তরের মানুষের মাঝে নেতিবাচক দৃষ্টান্ত হিসেবে পরিগনিত হয়েছে। সৈয়দপুরের প্রতি নীলফামারীবাসীর প্রতিহিংসাপরায়নতার এহেন হীনমন্যতার দৃশ্য সমালোচনার ঝড় তুলেছে সচেতন মহলে।

যার ফলে একজন প্রবীন সাংবাদিকের মধ্যস্থতায় বহুভাগে বিভক্ত সৈয়দপুরের সংবাদকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে আওয়াজ তুলেছে এই দূর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে। অনুদান প্রাপ্তির জন্য আবেদনের পরিবর্তে বঞ্চিত করার নেপত্যের ক্রীড়নকদের মুখোশ উন্মোচন করার শপথে দাঁড়িয়েছেন রাজপথে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য