ভারতের ঐতিহাসিক সংসদ ভবনটি বাতিল হয়ে যাচ্ছে এবং তৈরি হতে যাচ্ছে নতুন সংসদ ভবন। রাজধানী দিল্লির কেন্দ্রে এগারো কোটি ৭০ লক্ষ ডলার ব্যয়ে নতুন সংসদ ভবন নির্মাণের কাজ ২০২২ সালে শেষ হবে বলে জানানো হচ্ছে।

ভারতীয় স্বাধীনতার ৭৫ বছর পূর্তির বছরকে সামনে রেখে এই প্রকল্পের কাজ হাতে নেয়া হয়েছে।

দেশটির নতুন সংসদ ভবন নির্মাণের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে ভারতের অন্যতম বৃহৎ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান টাটাকে।

তবে সমালোচকরা বলেছেন এই বিপুল পরিমাণ অর্থ নতুন সংসদ ভবন নির্মাণ না করে, বরং সরকারের উচিত তা করোনাভাইরাস মহামারি নিয়ন্ত্রণে ব্যয় করা।

ভারতে এখন শনাক্ত হওয়া কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে- এবং বিশ্বে আক্রান্তের তালিকায় ভারত এখন দু নম্বরে। এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে দেশটিতে মারা গেছে ৮০ হাজারের বেশি মানুষ।

কিন্তু সরকার যুক্তি দিয়েছে যে দেশটিতে নতুন সংসদ ভবনের প্রয়োজন কারণ বর্তমান ভবনটি তৈরি হয়েছিল ১৯২০এর দশকে এবং ভবনটিতে “ক্ষয় ও অতি ব্যবহারের” লক্ষ্মণ দেখা দিয়েছে।

সরকার বলছে সংসদ সদস্য ও সংসদ কর্মচারীর সংখ্যাও বেড়ে গেছে।

নতুন ভবনটি বর্তমান সংসদের চেয়ে বড় হবে এবং সেখানে ১৪০০ এমপির জন্য আসন থাকবে বলে জানাচ্ছে বার্তা সংস্থা প্রেস ট্রাস্ট অফ ইন্ডিয়া।

খবরে বলা হচ্ছে নতু ভবনটি হবে তিনতলা এবং ত্রিভুজাকৃতি।

দিল্লিতে ঔপনিবেশিক আমলের সরকারি ভবনগুলো আধুনিকায়নের জন্য সরকারের নেয়া দুশ’ কোটি ডলারের এক প্রকল্পের অংশ হিসাবে নতুন সংসদ ভবন নির্মাণের এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

তবে গোটা প্রকল্পটি নিয়ে ইতোমধ্যেই বিতর্ক ও সমালোচনার ঝড় উঠেছে। প্রকল্পের সমালোচকরা এর খরচ এবং নতুন ভবনগুলোর নির্মাণশৈলীর নান্দনিকতা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য