পাকিস্তানের লাহোরে সন্তানের সামনেই গণধর্ষণের শিকার হলেন এক মা। এদিকে এই ঘটনায় গণধর্ষণের শিকার হওয়া ওই নারীকেই দুষছে পুলিশ।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার ভোরের দিকে লাহোর থেকে দুই সন্তানকে নিয়ে গুজরানওয়ালা যাচ্ছিলেন ওই নারী। কিন্তু মাঝরাস্তাতেই তার গাড়ি খারাপ হয়ে যায়। এরপরেই স্বামীকে তা ফোন করে জানান। অপেক্ষা করতে থাকেন সাহায্যের।

স্বামী আসার আগেই ঘটনাস্থলে এসে হাজির হয় একদল যুবক। তাকে গাড়ি থেকে জোর করে নামায় ওই যুবকের দল। তারপরে সন্তানদের সামনেই ওই নারীকে ধর্ষণ করা হয়। ধর্ষণের পরে ওই নারীর গয়না, নগদ এবং ৩টি এটিএম কার্ড সব নিয়ে চলে যায় ওই যুবকেরা।

এই ঘটনার ইতিমধ্যেই ১৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। লাহোর থেকে গুজরানওয়ালার ওই হাইওয়েতে যাত্রীদের নিরাপত্তা নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন। এতদিন সেখানে কোনও পুলিশ টহল ছিল না বলে স্বীকারও করেছে পাঞ্জাব পুলিশ।

কিন্তু এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ ধর্ষকদের নয় বরং ধর্ষিতার দিকে আঙুল তুলেছে। ওই নারীর একা একা বাড়ি থেকে বেরুনো উচিৎ হয়নি বলে মন্তব্য করয়েছেন পাকিতানের পুলিশ কর্মকর্তারা।

পাকিস্তান পুলিশের কর্মকর্তা উমর শেখ বলেন, পাকিস্তানের সমাজে কোনও কেউ তাদের বোন এবং মেয়েদের রাতে একা বাইরে বেরোতে অনুমতি দেবে না। তাই তিনি মনে করেছেন, ধর্ষিতার উচিৎ ছিল অন্য কোনো নিরাপদ রাস্তা বেছে নেওয়া। এই মন্তব্যের পরেই প্রতিবাদে গর্জে উঠেছে পাকিস্তানের বিভিন্ন সংগঠন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য