উত্তরাঞ্চলের একমাত্র ভারী শিল্প-কারখানা রংপুর (মহিমাগঞ্জ) চিনিকলের জেষ্ঠ্য খামার সাহেবগঞ্জ বাগদা র্ফামের ১৮শ’১৩একর জমির মধ্যে প্রায় ৫শ’একর জমি দখল করে নিয়েছে আদিবাসি সাঁওতাল -বাঙ্গালীরা জমিতে রোপা আমন ধানের চারা লাগিয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে,ইক্ষু খামার এলাকার আদিবাসি গ্রাম মাদারপুর,জয়পুর সহ বিভিন্ন এলাকার আদিবাসি সাঁওতাল বাঙ্গালীরা জমি দখলে নিয়ে হাল চাষ করে রোপা আমন ধানের চারা রোপনে ব্যস্ত সময় পার করছে। উপস্থিত কয়েক জন আদিবাসি শ্রমিকদের সাথে কথা বলে জানা যায়,তারা বাগদা র্ফামে বাপ দাদার ভুমি উদ্ধার করে ধান চাষ করছে।

এ দিকে বাগদা র্ফামের ভুমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটির সভাপতি ডাঃ ফিলিমন বাস্কে জানিয়েছেন, রংপুর চিনি কল প্রতিষ্ঠার সময় তৎকালিন সরকার সাহেবগঞ্জ বাগদা র্ফামের জন্য ঐ এলাকায় বসবাসরত আদিবাসি সাঁওতাল -বাঙ্গালীদের জমি আখ চাষের জন্য রিকুইজিশন করেন কিন্তু মিল টি র্দীঘ কোটি কোটি লোকসানের হাত থেকে বাঁচতে সরকার ২০০৫ সালে মিলটি বন্ধ ঘোষনা করেন এবং মিল কর্তৃপক্ষ এলাকার কতিপয় প্রভাবশালী ব্যক্তিদের নিকট লীজ দেয়।

লীজ গৃহীতারা আখ চাষের পরিবর্তে ধান সহ নানা ফসল করায় আদিবাসি সাঁওতাল বাঙ্গালীদের ওয়ারিশরা বাপ-দাদার জমি ফেরতের লক্ষে ভুমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটি গঠন করে ভুমি ফেরতের দাবীতে সংশ্লিষ্ট দপ্তর যোগাযোগ অব্যাহত রাখেন এবং ২০১৬ সালে তারা র্ফামের জমি দখল করে শতাধিক ঘর-বাড়ী র্নিমাণ সহ কিছু জমিতে ধান সহ নানা ফসলের চাষ করে।

২০১৬ সালের ৬ নভেম্বর সকালে খামারের আখ কাটা শ্রমীকদের সাথে সাঁওতাল -বাঙ্গালীদের সংর্ঘষ হয় পরে সন্ধ্যায় মিলের শ্রমীক,নিরাপত্তা রক্ষি,পুলিশ যৌথ ভাবে খামারে বসবাসরত সাওঁতাল পল্লীতে অগ্নি-সংযোগ,লুটপাট সময় পুলিশের গুলিতে আদিবাসি রমেশ টুডু,শ্যামল হেমরন ও মঙ্গল মার্ডি নিহত সহ প্রায় অর্ধশত সাঁওতাল বাঙ্গালী আহত হয়।

ফিলিমন বাস্কে আরো জানান, সাহেবগঞ্জ বাগদা র্ফামের ভুমি পুনঃরায় উদ্ধার করে জমিতে আমন চাষ অব্যাহত রেখেছি। অপর দিকে খামার ব্যাবস্থাপক আয়ুব হোসেনের নিকট খামারের জমি দখল সহ ঘর-বাড়ী র্নিমাণ সর্ম্পকে জানতে চাইলে তিনি জানান, রাষ্টীয় সম্পদ রক্ষার আমি সর্বক্ষন সংশ্লিষ্ট দপ্তরে রিপোট প্রদান করে আসছি। তারা জোরর্পূবক ঘর র্নিমাণ সহ প্রায় ৪শ’একর জমি দখল করে নিয়েছে এবং খামার এলাকায় ২০/২২ টি পুকুর দখল করেছে।সাহেবগঞ্জ ইক্ষু খামারে জমি দখল-বে-দখল কেন্দ্র করে আবারো বড় ধরনের রক্তক্ষয়ি সংর্ঘষের আশঙ্কা রয়েছে বলে বিজ্ঞমহল ধারণা করছেন বলে জানিয়েছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য