দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার পল্লীতে আকরাম আলী (৪৫) নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে গোপনে দীর্ঘদিন ধরে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। বর্তমানে ওই ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা। অভিযুক্ত আকরাম আলী উপজেলার আন্ধারমুহা গ্রামের মিস্ত্রিপাড়ার সেকেন্দার আলীর ছেলে। ওই ঘটনায় গত ৪ সেপ্টেম্বর শুক্রবার রাত ১০টায় ওই ছাত্রীর মা থানায় মামলা দায়ের করে। পুলিশ গতকাল অভিযুক্ত আকরাম আলীকে গ্রেফতার করে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ওই ছাত্রী স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণিতে অধ্যয়নরত। ওই মেয়েকে বাড়িতে রেখে তার পিতামাতা নিয়মিত কাজে যান। এই সুযোগে বাড়ি ফাঁকা পেয়ে আকরাম আলী মেয়েটিকে বিভিন্ন প্রকার প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। স্কুলছাত্রীর মা অভিযোগ করেন, লোকলজ্জার ভয়ে ঘটনাটি কাউকে বলার সাহস পাননি তার মেয়ে। গত ১ সেপ্টেম্বর মেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে চিকিৎসকের নিকট নিয়ে যান তারা।

চিকিৎসক ওই ছাত্রীর চেকআপ শেষে জানান, তাদের মেয়ে অন্তঃসত্ত্বা। বিষয়টি জেনে মেয়েকে জিজ্ঞাসা করলে সে সবকিছু খুলে বলে। পরে স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তি অভিযুক্ত আকরাম আলীর নিকট বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি মেয়েটিকে কয়েকদিনের মধ্যেই বিয়ে করবেন বলে জানান। এরপর শুরু হয় অভিযুক্ত আকরাম আলীর তালবাহানা। এভাবে কিছুদিন অতিবাহিত হলেও অভিযুক্ত আকরাম আলী আর আর তাদের কোন পাত্তা দিচ্ছেন না। উল্টো তাদেরকে বিভিন্ন প্রকার হুমকি দিচ্ছেন।

চিরিরবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুব্রত কুমার সরকার বলেন, আকরাম আলী নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করে অন্তঃসত্ত্বা করা অভিযোগে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের হয়েছে। অভিযুক্ত আকরাম আলীকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং কোর্টে সোর্পদ করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য