দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার ওয়াহিদা খানমকে আজ দুপুরে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর একটি হেলিকপ্টারে রংপুর থেকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্স অ্যান্ড হসপিটালের যুগ্ম পরিচালক অধ্যাপক ডা. বদরুল আলম জানিয়েছেন, তার শরীরের ডান সাইড প্যারালাইজড হয়ে গেছে।

তিনি জানান, তারা দ্বিতীয়বারের মতো ওয়াহিদাকে অস্ত্রোপচার কক্ষে নিচ্ছেন। এখন অপারেশন করা যাবে। তিনি বলেন, ‘আঘাত অত্যন্ত গুরুতর, মাথায় এমনভাবে আঘাত করা হয়েছে যে খুলির হাড় ভেঙে মস্তিষ্কের ভেতরে ঢুকে গেছে। এ কারণে রক্তক্ষরণ হয়েছে এবং শরীরের ডান পাশ প্যারালাইজড হয়ে গেছে।’

ডা. বদরুল আলম বলেন, ‘তাকে এখনও ৭২ থেকে ৯৬ ঘণ্টার অবজারভেশনে রাখতে হবে। যেকোনও ‘সিচুয়েশনের’ জন্য আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে।’

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্স অ্যান্ড হসপিটালে একটি বিশেষজ্ঞ মেডিক্যাল টিম গঠন করা হয়েছে। পাশাপাশি হাসপাতালে আছেন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নিউরো সার্জারি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. রাজিউল হক। ওয়াহিদাকে দেখে গেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও প্রখ্যাত নিউরো সার্জন অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া।’ ভিসি স্যার তাকে দেখে অস্ত্রোপচার করা যাবে বলে সিদ্ধান্ত দিয়ে গেছেন, বলেন অধ্যাপক বদরুল আলম।

এদিকে ওয়াহিদা খানমের সর্বোচ্চ চিকিৎসা নিশ্চিত করতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঢাকার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্সেস অ্যান্ড হসপিটালে চিকিৎসাধীন ওয়াহিদা খানমকে আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে দেখতে গিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের বাসভবনের নিরাপত্তায় আনসার ব্যাটালিয়ন নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। আগামী সপ্তাহের মধ্যে যাতে আনসার-ব্যাটালিয়ন নিয়োগ করা যায় সেটি নিশ্চিত করতেই সিদ্ধান্ত নিচ্ছে প্রশাসন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য