আবারো এক কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তিকে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে মার্কিন পুলিশের বিরুদ্ধে । মুখ ঢাকা অবস্থায় ফুটপাতে মুখ চেপে শ্বাসরোধ করে যুক্তরাষ্ট্রে নিউ ইয়র্কের রচেস্টারে ড্যানিয়েল প্রুড নামের এক নিরস্ত্র কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তিকে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেছে নিহতের পরিবার। স্থানীয় সময় বুধবার এক সংবাদ সম্মলেনে তারা এমনটি দাবি করেন।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ৪১ বছর বয়সী ড্যানিয়েল প্রুড মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলেন। গত ২৩ মার্চ প্রুড রাস্তায় উলঙ্গ হয়ে বেরিয়ে পড়েন। পরে তার পরিবারের পক্ষ থেকে পুলিশকে ফোন করা হয়। তবে পুলিশ এসে ড্যানিয়েলকে হাতকড়া পরিয়ে দীর্ঘ সময় ফুটপাথে বসিয়ে রাখে। ড্যানিয়েল এর প্রতিবাদ করতেই এক শ্বেতাঙ্গ পুলিশ সাদা ঢাকনা পরিয়ে দেয়। এই করোনা সংকটে আটক ব্যক্তি যাতে থুতু না ছেটাতে পারে, তার জন্যই ওই ডিভাইস। এর পর সেটি পরা অবস্থায় মুখে দু-মিনিট ফুটপাথে চেপে ধরায় শ্বাস আটকে জ্ঞান হারান ড্যানিয়েল।

পরে হাসপাতালে নেওয়া হলে ড্যানিয়েলকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। ৩০ মার্চ লাইফ সাপোর্ট খুলে দেওয়ার পর মারা যান ড্যানিয়েল প্রুড।

ঘটনার পাঁচ মাস পর পুলিশের এই নির্মম অত্যাচারের ভিডিও জনসমক্ষে এনেছে ড্যানিয়েল প্রুডের পরিবার।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশের হেফাজতে থাকা আর এক কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডকেও গত মে মাসে গলায় হাঁটুর চাপ দিয়ে শ্বাসরোধ করেই হত্যা করেছিল পুলিশ। যার প্রতিবাদে হাজার হাজার মানুষ দেশজুড়ে বিক্ষোভ করেছেন। বছর ৪৬-এর ওই ব্যক্তি ছিলেন নিরস্ত্র। মিনিয়াপোলিস শহরের একজন শ্বেতাঙ্গ পুলিশ কর্তা হাঁটু গেড়ে বসে তার গলার ওপর চাপ দেওয়ায় দম বন্ধ হয়ে মারা যান ফ্লয়েড।

সেই ঘটনার রেশ কাটার আগেই আগস্টের শেষ দিকে কেনোশা শহরে জ্যাকব ব্লেক পুলিশি বর্বরতার শিকার হয়। তিনিও কৃষ্ণাঙ্গ যুবক। তিন সন্তানের চোখের সামনে বিনা অপরাধে পুলিশ তাঁকে পরপর সাতটা গুলি করে। প্রাণে বেঁচে গেলেও গুলিতে তার শিরদাঁড়া টুকরো টুকরো হয়ে যায়। অস্ত্রোপচার হয়েছে। আছেন হাসপাতালেই। কিন্তু, মেরুদণ্ড সোজা করে আর দাঁড়াতে পারবেন না কেনোশার এই কৃষ্ণাঙ্গ যুবক। তার আইনজীবী জানিয়েই দিয়েছেন, জ্যাকব ব্লেক পঙ্গু হয়ে গিয়েছেন। যদি ভবিষ্যতে আবার স্বাভাবিক হাঁটতে পারেন, সেটা হবে অঘটন!

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য