দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার দক্ষিণ হরিরামপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামের সাহেব আলী ১৪ বছর ধরে মালয়েশিয়া প্রবাসী। ২০১৫ সালে স্থানীয় খয়েরপুকুরহাটে প্রায় দুই শতক জমির ওপর একটি দোকান ঘর কেনেন সাহেব আলী। মেসার্স সায়মা ট্রেডার্স নামের ওই দোকানটি ৮ মাস পূর্বে উত্তর বিষ্ণপুর ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের মৃত আসমত উল্লার ছেলে আব্দুল হাকিমের কাছে ভাড়া দেন।

কিছুদিন আগে সাহেব আলীর স্ত্রী দোকান ঘরটি পারিবারিক ব্যবসার কাজে ব্যবহারের জন্য ফেরত চাইলে নানান তালবাহানা করতে থাকে ভাড়াটিয়া আব্দুল হাকিম। এরই এক পর্যায়ে গত ১১ আগষ্ট সাহেব আলীর স্ত্রী রোকসানা বেগম তার মেয়ে শান্তা মনি (১৪) কে সাথে নিয়ে দোকানে গিয়ে ভাড়াটে হাকিমকে দোকান ছেড়ে দেয়ার জন্য অনুরোধ করেন।

এতে সাড়া না দিয়ে উল্টো উত্তেজিত হয়ে আব্দুল হাকিম ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা সাহেব আলীর স্ত্রী রোকসানা বেগম ও কণ্যা শান্তা মনিকে বেদম মারধর করে। এসময় উৎসুক লোকজন ও মধ্যপাড়া তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে তাদের উদ্ধার করে গুরুতর আহত অবস্থায় রপুরের বদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। ঘটনাস্থলে সমবেত লোকজনকে উদ্দেশ্য করে উত্তেজিত আব্দুল হাকিম চিৎকার করে বলতে থাকে এ্যাই দ্যাখেন, সাহেব আলীর বড়ভাই আতাউর রহমানের কাছ থেকে এই দোকান কিনে নেয়ার দলিলপত্র।

এঘটনায় হতভম্ব সাহেব আলীর স্ত্রী রোকসানা বেগম বিচার চেয়ে স্থানীয় হরিরামপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমান শাহ এর নিকট অভিযোগ করেন। কিন্তু অভিযুক্ত আব্দুল হাকিম বিচার প্রক্রিয়া উপেক্ষা করায় রোকসানা বেগম গত ১২ আগষ্ট তাকে ও তার মেয়ে মারধর ও গায়ের জোরে দোকান ঘর দখল করে রাখার অভিযোগে পার্বতীপুর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

অন্যদিকে, আব্দুল হাকিমও ভাইপো তারাজুলকে দিয়ে সাহেব আলীর স্ত্রী, কণ্যা ও জামাতাসহ তার পরিবারের ১১ জনের বিরুদ্ধে দোকান ভাংচুর ও ১১ লাক্ষ টাকার মালামাল লুটপাটের অভিযোগ এনে গত ১৪ আগষ্ট একই থানায় পাল্টা মামলা দায়ের করান। এসব ঘটনায় দিশেহারা প্রবাসী সাহেব আলীর স্ত্রী রোকসানা বেগম ও তার পরিবারের সদস্য জনপ্রতিনিধি, আইন শৃংখলা বাহিনী ও উপজেলা প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করে ও বারবার ধরনা দিয়েও এ ঘটনার কোন প্রতিকার পাচ্ছেন না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য