কুড়িগ্রামের চিলমারীতে চড়াদামে বিক্রি করা হচ্ছে আমন ধানের চারা। বন্যায় বীজতলা নষ্ট হওয়ায় কৃষক ওই চারাগুলো চড়াদামে কিনতে বাধ্য হচ্ছেন। কৃষকদের অভিযোগ, বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারের পদক্ষেপ না থাকায় ইচ্ছেমতো দাম হাঁকা হচ্ছে। পাশাপাশি ক্রেতা ও বিক্রেতাদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে টোল।

বন্যার পানি নেমে যাওয়ায় কৃষক আমন ধানে রোপণে ঝুঁকছেন। প্রতিদিন শত শত কৃষক আমন চারা কিনতে বিভিন্ন হাট বাজারে আসচ্ছেন।

বাজার ঘুরে জানা যায়, আমন চারা ব্যবসায়ীরা লালমনিরহাট, বড়বাড়ী, নাগেশ্বরী, রংপুর, সৈয়দপুর, তারাগঞ্জ, পীরগাছা, কাউনিয়া, তিস্তা, রাজারহাটসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে চারা কিনে এনে উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারে বিক্রি করছেন।

চারা বিক্রেতা জহরুল জানান, অতীতের যে কোনো সময়ে চেয়ে এবার বেশি দামে চারা বিক্রি হচ্ছে। প্রতি পোন চারা বিক্রি হচ্ছে আটশ থেকে দুই হাজার টাকায়।

থানাহাট বাজারে চারা কিনতে আশা বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক আব্দুল কাদের বলেন, এমনিতেই চড়াদামে চারা কিনে জমিতে লাগিয়েছি, তারপর ব্রহ্মপুত্র নদে পানি বাড়ায় দুশ্চিন্তায় আছি।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস জানায়, এবারের বন্যায় চিলমারী উপজেলার ৩২০ হেক্টর জমির আমন বীজতলা নষ্ট হয়ে গেছে। আমনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল আট হাজার চারশ হেক্টর। এবার লক্ষমাত্রা অর্জন না হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য